ঢাকা ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইবিতে চোর সন্দেহে আটক ২

ওয়াসিফ আল আবরার, ইবি প্রতিনিধি

 

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষক কোয়ার্টার থেকে চোর সন্দেহে ২ যুবককে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা হলেন, কুষ্টিয়ার পূর্ব মজমপুর গ্রামের বাসিন্দা মুক্তার হোসেনের ছেলে জীবন (৩০) ও মিলনের ছেলে শান্ত (৩২)।

শনিবার (২০ এপ্রিল) বেলা ২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টার থেকে তাদের সন্দেহভাজন হিসেবে ধরেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিকিউরিটি ইনচার্জ মো: আব্দুস সালাম ও খলিলুর রহমান।

জানা যায়, দীর্ঘ ৪০ দিনের ছুটি শেষে শনিবার চালু হয় ইবির কার্যক্রম। তবে ক্যাম্পাস খুললেও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কম থাকায় দুপুরের মধ্যেই ক্যাম্পাস ফাকা হয়ে যায়। এ সুযোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টারে চুরি করতে আসে ২ যুবক৷ তবে সংরক্ষিত এলাকায় ঢুকে কিছু চুরির আগেই সিকিউরিটি ইনচার্জ তাদের পাকড়াও করে প্রক্টর অফিসে নিয়ে যান। পরবর্তীতে তাদের ইবি থানা পুলিশের হাতে হস্তান্তর করা হয়৷

সিকিউরিটি ইনচার্জ আবদুস সালাম বলেন, ইতোপূর্বেও আমাদের কোয়াটারে বিভিন্ন সময় ফ্যান, ট্যাপ, শাওয়ার চুরি হয়েছে। ওই দুইজন যখন কোয়ার্টারে ছিল তখন আমরা হাতেনাতে তাদের ধরেছি৷ তাদের উদ্দেশ্য ছিল সুনসান পরিবেশে চুরি করে সব নিয়ে যাওয়া৷

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ বলেন, যেহেতু এগুলো রাষ্ট্রীয় সম্পদ, তাই আমরা রেজিস্ট্রার বরাবর ফরোয়ার্ড করেছি এবং তাদের পুলিশে সোপর্দ করেছি। বাকিটা প্রশাসন দেখবে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৩:২১:৪৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪
৬৩ বার পড়া হয়েছে

ইবিতে চোর সন্দেহে আটক ২

আপডেট সময় ০৩:২১:৪৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

 

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষক কোয়ার্টার থেকে চোর সন্দেহে ২ যুবককে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা হলেন, কুষ্টিয়ার পূর্ব মজমপুর গ্রামের বাসিন্দা মুক্তার হোসেনের ছেলে জীবন (৩০) ও মিলনের ছেলে শান্ত (৩২)।

শনিবার (২০ এপ্রিল) বেলা ২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টার থেকে তাদের সন্দেহভাজন হিসেবে ধরেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিকিউরিটি ইনচার্জ মো: আব্দুস সালাম ও খলিলুর রহমান।

জানা যায়, দীর্ঘ ৪০ দিনের ছুটি শেষে শনিবার চালু হয় ইবির কার্যক্রম। তবে ক্যাম্পাস খুললেও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কম থাকায় দুপুরের মধ্যেই ক্যাম্পাস ফাকা হয়ে যায়। এ সুযোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টারে চুরি করতে আসে ২ যুবক৷ তবে সংরক্ষিত এলাকায় ঢুকে কিছু চুরির আগেই সিকিউরিটি ইনচার্জ তাদের পাকড়াও করে প্রক্টর অফিসে নিয়ে যান। পরবর্তীতে তাদের ইবি থানা পুলিশের হাতে হস্তান্তর করা হয়৷

সিকিউরিটি ইনচার্জ আবদুস সালাম বলেন, ইতোপূর্বেও আমাদের কোয়াটারে বিভিন্ন সময় ফ্যান, ট্যাপ, শাওয়ার চুরি হয়েছে। ওই দুইজন যখন কোয়ার্টারে ছিল তখন আমরা হাতেনাতে তাদের ধরেছি৷ তাদের উদ্দেশ্য ছিল সুনসান পরিবেশে চুরি করে সব নিয়ে যাওয়া৷

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ বলেন, যেহেতু এগুলো রাষ্ট্রীয় সম্পদ, তাই আমরা রেজিস্ট্রার বরাবর ফরোয়ার্ড করেছি এবং তাদের পুলিশে সোপর্দ করেছি। বাকিটা প্রশাসন দেখবে।