ঢাকা ১১:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইবিতে মুকুলের সুরভিত ঘ্রাণ বার্তা দিচ্ছে মধুমাস আগমনীর

ওয়াসিফ আল আবরার, ইবি

প্রকৃতিতে এখন শীতের আমেজ। শীতের জড়তা কাটিয়ে কোকিলের সেই কুহুতানে মাতাল করতে প্রকৃতিতে এসে গেছে ঋতুরাজ বসন্ত। বসন্তের আগমনে গাছে গাছে ফুটছে আমের মুকুল। ফাগুন হাওয়ায় চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ। মৌমাছির গুঞ্জন আর মুকুলের ঘ্রাণে মুগ্ধ করেছে প্রকৃতিপ্রেমীদের। শীত যেতে না যেতেই আমের মুকুল জানান দিচ্ছে ঋতুরাজ বসন্তের আগমন।

 

তেমনি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) মধুমাসের আগমনী বার্তা নিয়ে হাজির আমের মুকুল। রিক্ততার ঋতু শীতের যাওয়ার পর মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে মাতোয়ারা পুরো ক্যাম্পাস। ছোট-বড় প্রতিটি আম গাছে ফুটেছে নতুন মুকুল। আমের মুকুলে সুভাস ছড়াচ্ছে ফাগুন হাওয়ায়। মৌমাছিরা ঘুরে বেড়াচ্ছে গুনগুন শব্দে। মুকুলের পাগল করা ঘ্রানে বিমোহিত শিক্ষার্থীদের মন। মৌমাছির গুঞ্জন আর মুকুলের মনমাতানো ঘ্রাণ মুগ্ধ করছে শিক্ষার্থী ও দর্শনার্থীদের।

 

ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ঝাল চত্বর, আমবাগান, অনুষদ ভবন এবং লাইব্রেরির পাশের এলাকাসহ ক্যাম্পাসের সব আমগাছে ফুটছে মুকুল। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের প্রতি মধুমাসের আগমনী বার্তাও শোনাচ্ছে এই আমের মুকুল। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে সুগন্ধ। থোকা থোকা মুকুলেরভারে ঝুলে পড়েছে আম গাছের ডালপালা। ইতোমধ্যে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) অভ্যন্তরে বিভিন্ন আম বাগানে দেখা মিলেছে আমের গুটির।

ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী কানিজ ফারজানা আশা বলেন, ‘ক্যাম্পাসের গাছগুলোতে মুকুলের বাহার দেখে খুবই ভালো লাগছে। পুরো ক্যাম্পাস মুকুলের সুবাসে ভরে গেছে। । বাতাসে যখন মুকুল দোল খায়, তখন দেখে মন জুড়িয়ে যায়।

বঙ্গবন্ধু হলের এক শিক্ষার্থী বলেন, ক্যাম্পাসের প্রতিটি আম গাছে মুকুল এসেছে। তবে, প্রত্যেকবার অনেক আম আসলেও পরিপক্ব হওয়ার আগেই সেগুলো শেষ হয়ে যায়। আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করব এই আমগুলো যেন পরিপক্ব হওয়ার আগে পর্যন্ত সংরক্ষণেরণের ব্যবস্থা করতে।

পরিবেশবাদী সংগঠন অভয়ারণ্যের সাধারণ সম্পাদক অর্প বলেন, আম বাগানের পাশ দিয়ে হাঁটতে যেয়ে একটি অসম্ভব সুন্দর সুখের ঘ্রাণ পেলাম। উপলব্ধি করলাম গাছে গাছে ফুটছে আমের মুকুল। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে এই মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ। বাতাসে মিশে সৃষ্টি করছে মৌ মৌ গন্ধ। এই গন্ধ মানুষের মনকে বিমোহিত করছে, পাশাপাশি দিচ্ছে মধুমাসের আগমনী বার্তা।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৫:৩৯:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ মার্চ ২০২৪
৪৬ বার পড়া হয়েছে

ইবিতে মুকুলের সুরভিত ঘ্রাণ বার্তা দিচ্ছে মধুমাস আগমনীর

আপডেট সময় ০৫:৩৯:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ মার্চ ২০২৪

প্রকৃতিতে এখন শীতের আমেজ। শীতের জড়তা কাটিয়ে কোকিলের সেই কুহুতানে মাতাল করতে প্রকৃতিতে এসে গেছে ঋতুরাজ বসন্ত। বসন্তের আগমনে গাছে গাছে ফুটছে আমের মুকুল। ফাগুন হাওয়ায় চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ। মৌমাছির গুঞ্জন আর মুকুলের ঘ্রাণে মুগ্ধ করেছে প্রকৃতিপ্রেমীদের। শীত যেতে না যেতেই আমের মুকুল জানান দিচ্ছে ঋতুরাজ বসন্তের আগমন।

 

তেমনি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) মধুমাসের আগমনী বার্তা নিয়ে হাজির আমের মুকুল। রিক্ততার ঋতু শীতের যাওয়ার পর মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে মাতোয়ারা পুরো ক্যাম্পাস। ছোট-বড় প্রতিটি আম গাছে ফুটেছে নতুন মুকুল। আমের মুকুলে সুভাস ছড়াচ্ছে ফাগুন হাওয়ায়। মৌমাছিরা ঘুরে বেড়াচ্ছে গুনগুন শব্দে। মুকুলের পাগল করা ঘ্রানে বিমোহিত শিক্ষার্থীদের মন। মৌমাছির গুঞ্জন আর মুকুলের মনমাতানো ঘ্রাণ মুগ্ধ করছে শিক্ষার্থী ও দর্শনার্থীদের।

 

ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ঝাল চত্বর, আমবাগান, অনুষদ ভবন এবং লাইব্রেরির পাশের এলাকাসহ ক্যাম্পাসের সব আমগাছে ফুটছে মুকুল। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের প্রতি মধুমাসের আগমনী বার্তাও শোনাচ্ছে এই আমের মুকুল। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে সুগন্ধ। থোকা থোকা মুকুলেরভারে ঝুলে পড়েছে আম গাছের ডালপালা। ইতোমধ্যে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) অভ্যন্তরে বিভিন্ন আম বাগানে দেখা মিলেছে আমের গুটির।

ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী কানিজ ফারজানা আশা বলেন, ‘ক্যাম্পাসের গাছগুলোতে মুকুলের বাহার দেখে খুবই ভালো লাগছে। পুরো ক্যাম্পাস মুকুলের সুবাসে ভরে গেছে। । বাতাসে যখন মুকুল দোল খায়, তখন দেখে মন জুড়িয়ে যায়।

বঙ্গবন্ধু হলের এক শিক্ষার্থী বলেন, ক্যাম্পাসের প্রতিটি আম গাছে মুকুল এসেছে। তবে, প্রত্যেকবার অনেক আম আসলেও পরিপক্ব হওয়ার আগেই সেগুলো শেষ হয়ে যায়। আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করব এই আমগুলো যেন পরিপক্ব হওয়ার আগে পর্যন্ত সংরক্ষণেরণের ব্যবস্থা করতে।

পরিবেশবাদী সংগঠন অভয়ারণ্যের সাধারণ সম্পাদক অর্প বলেন, আম বাগানের পাশ দিয়ে হাঁটতে যেয়ে একটি অসম্ভব সুন্দর সুখের ঘ্রাণ পেলাম। উপলব্ধি করলাম গাছে গাছে ফুটছে আমের মুকুল। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে এই মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ। বাতাসে মিশে সৃষ্টি করছে মৌ মৌ গন্ধ। এই গন্ধ মানুষের মনকে বিমোহিত করছে, পাশাপাশি দিচ্ছে মধুমাসের আগমনী বার্তা।