ঢাকা ১১:১৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইবির ধুলোপড়া বন্ধ ক্যাফে খুলবে কবে?

ওয়াসিফ আল আবরার, ইবি

 

প্রায় ১ বছর ধরে বন্ধ থাকা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া কবে খুলবে তা জানেনা কেও। ক্যাফেটেরিয়া বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে বাইরের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের হোটেল ও দোকানগুলো থেকে মানহীন খাবার কিনে খেতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এতে স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে ক্যাম্পাস জীবন কাটাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। এদিকে দিনের পর দিন বন্ধ ক্যাফে’টিতে পড়েছে ধূলোর আস্তরণ।

শনিবার (২০ জানুয়ারী) সরজমিনে গিয়েও বিশ্ববিদ্যালয়ের বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে অবস্থিত কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া বন্ধ পাওয়া যায়। এলোমেলো চেয়ার-টেবিলগুলোই জানান দিচ্ছে দীর্ঘদিনেও শিক্ষার্থীদের পদচারণা পড়েনি এই প্রাঙ্গনে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, করোনা পরবর্তী এবং ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধকালীন সময়ে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় ২০২৩ সালের ১২ মার্চ লোকসান হওয়ায় ক্যাফেটেরিয়া চালাতে অপারগতা প্রকাশ করে অব্যহতি পত্র দেন সাবেক ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম কলম। দীর্ঘ পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর গত ২৭ আগস্ট আবারো চালু হয় ইবির ক্যাফে৷ কিন্তু চালুর মাস না পেরোতেই আবারো ম্যানেজার পদ থেকে ইস্তফা দেন নতুন ম্যানেজার রাজিব মন্ডল। সেই থেকে এখনো বন্ধ আছে ক্যাফে’টি।

ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, শিক্ষার্থীদের ক্লাস পরীক্ষার ফাঁকে আড্ডা দেওয়ার অন্যতম জায়গা এটি। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় বাইরের দোকান থেকে বেশি দামে খাবার কিনতে হচ্ছে। এতে সময় এবং অর্থ যেমন নষ্ট হচ্ছে তেমনি নোংরা পরিবেশে তৈরী মানহীন খাবারে স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। এছাড়া, বসার মতো উপযুক্ত জায়গা না থাকায় গাছতলায় দাঁড়িয়ে খাওয়া দাওয়া করতে হয়। এটিও ভোগান্তির অন্যতম কারণ।

এ বিষয়ে ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শেলিনা নাসরীন বলেন, ক্যাফেটেরিয়া একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খাবারের বিকল্প যে ব্যবস্থা, শিক্ষক শিক্ষার্থীরা সেটি এখানেই খোঁজে। কিন্তু খাবারের মানের দিকটি বিবেচনা করে আমরা যে নীতিমালা অনুযায়ী দরপত্র আহ্বান করি তাতে সাড়া পাওয়া যায় না। তবে লোক পাওয়া যাচ্ছে না বলে যে আমরা থেমে যাব এমনটি ভাবার কারণ নেই। কমিটির সদস্যরা বসে পরবর্তী করণীয় ঠিক করবো।

জানতে চাইলে টিএসসিসির পরিচালক ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. বাকী বিল্লাহ বিকুল বলেন, একটি ক্যাফেটেরিয়া তো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ। অনেক প্রচেষ্টার পর আমাদের ক্যাফেটেরিয়া চালু করা হয়েছিল। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে আমরা খাবারের মান ও দাম নির্ধারণ করে দেই। কিন্তু ভর্তুকি না থাকায় যারা ক্যাফেটেরিয়া চালাতে আসেন তারা লাভের মুখ না দেখার অজুহাত দিয়ে চলে যান। এখন চালানোর মতো ম্যানেজার না থাকলে তো আমাদের করার কিছু থাকে না। এখন অন্য কোন উপায়ে ক্যাফেটেরিয়া চালু করা যায় কিনা সেই প্রচেষ্টা চলমান আছে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৬:২৩:৪৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪
১৬৬ বার পড়া হয়েছে

ইবির ধুলোপড়া বন্ধ ক্যাফে খুলবে কবে?

আপডেট সময় ০৬:২৩:৪৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪

 

প্রায় ১ বছর ধরে বন্ধ থাকা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া কবে খুলবে তা জানেনা কেও। ক্যাফেটেরিয়া বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে বাইরের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের হোটেল ও দোকানগুলো থেকে মানহীন খাবার কিনে খেতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এতে স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে ক্যাম্পাস জীবন কাটাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। এদিকে দিনের পর দিন বন্ধ ক্যাফে’টিতে পড়েছে ধূলোর আস্তরণ।

শনিবার (২০ জানুয়ারী) সরজমিনে গিয়েও বিশ্ববিদ্যালয়ের বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে অবস্থিত কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া বন্ধ পাওয়া যায়। এলোমেলো চেয়ার-টেবিলগুলোই জানান দিচ্ছে দীর্ঘদিনেও শিক্ষার্থীদের পদচারণা পড়েনি এই প্রাঙ্গনে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, করোনা পরবর্তী এবং ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধকালীন সময়ে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় ২০২৩ সালের ১২ মার্চ লোকসান হওয়ায় ক্যাফেটেরিয়া চালাতে অপারগতা প্রকাশ করে অব্যহতি পত্র দেন সাবেক ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম কলম। দীর্ঘ পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর গত ২৭ আগস্ট আবারো চালু হয় ইবির ক্যাফে৷ কিন্তু চালুর মাস না পেরোতেই আবারো ম্যানেজার পদ থেকে ইস্তফা দেন নতুন ম্যানেজার রাজিব মন্ডল। সেই থেকে এখনো বন্ধ আছে ক্যাফে’টি।

ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, শিক্ষার্থীদের ক্লাস পরীক্ষার ফাঁকে আড্ডা দেওয়ার অন্যতম জায়গা এটি। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় বাইরের দোকান থেকে বেশি দামে খাবার কিনতে হচ্ছে। এতে সময় এবং অর্থ যেমন নষ্ট হচ্ছে তেমনি নোংরা পরিবেশে তৈরী মানহীন খাবারে স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। এছাড়া, বসার মতো উপযুক্ত জায়গা না থাকায় গাছতলায় দাঁড়িয়ে খাওয়া দাওয়া করতে হয়। এটিও ভোগান্তির অন্যতম কারণ।

এ বিষয়ে ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শেলিনা নাসরীন বলেন, ক্যাফেটেরিয়া একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খাবারের বিকল্প যে ব্যবস্থা, শিক্ষক শিক্ষার্থীরা সেটি এখানেই খোঁজে। কিন্তু খাবারের মানের দিকটি বিবেচনা করে আমরা যে নীতিমালা অনুযায়ী দরপত্র আহ্বান করি তাতে সাড়া পাওয়া যায় না। তবে লোক পাওয়া যাচ্ছে না বলে যে আমরা থেমে যাব এমনটি ভাবার কারণ নেই। কমিটির সদস্যরা বসে পরবর্তী করণীয় ঠিক করবো।

জানতে চাইলে টিএসসিসির পরিচালক ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. বাকী বিল্লাহ বিকুল বলেন, একটি ক্যাফেটেরিয়া তো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ। অনেক প্রচেষ্টার পর আমাদের ক্যাফেটেরিয়া চালু করা হয়েছিল। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে আমরা খাবারের মান ও দাম নির্ধারণ করে দেই। কিন্তু ভর্তুকি না থাকায় যারা ক্যাফেটেরিয়া চালাতে আসেন তারা লাভের মুখ না দেখার অজুহাত দিয়ে চলে যান। এখন চালানোর মতো ম্যানেজার না থাকলে তো আমাদের করার কিছু থাকে না। এখন অন্য কোন উপায়ে ক্যাফেটেরিয়া চালু করা যায় কিনা সেই প্রচেষ্টা চলমান আছে।