ঢাকা ১০:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইবির ফলিতরসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের পুনর্মিলনী ২৪ ফেব্রুয়ারী

ওয়াসিফ আল আবরার, ইবি

আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত হতে যাছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের রজতজয়ন্তী ও ৫ম পুনর্মিলনী। পুনর্মিলনী উৎসব ঘিরে ফলিত বিজ্ঞান অনুষদ ভবন ও সংলগ্ন রাস্তার শোভা বাড়াচ্ছে লাল-নীল-হ্লুদ ঝাড়বাতি। বিভাগ প্রাঙ্গনে অঙ্কিত হচ্ছে রংবেরঙের আল্পনা।

 

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারী) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়কালে এসব জানান ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. শরিফ মুহাম্মদ আল-রেজা।

 

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, অনলাইনে গুগল ফর্মের মাধ্যমে সাবেক ২৭০ জন ও বর্তমানে অধ্যয়নরত প্রায় ৩০০ জন শিক্ষার্থী পুনর্মিলনীতে অংশগ্রহণ করবে বলে ইতোমধ্যে রেজিষ্ট্রেশন সম্পন্ন করেছে। এখানে সাবেক শিক্ষার্থীদের জন্য ২৫০০ টাকা এবং অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের সর্বনিম্ন ৭০০ টাকা চাঁদা নির্ধারণ করা হয়েছে। দু’দিন ব্যাপী এই আয়োজনে চলমান ৫ টি ব্যাচসহ সর্বমোট সাতাশটি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা অংশ নেবেন বলে জানা গেছে।

 

আরও জানা যায়, বিভাগের পক্ষ থেকে এটি পঞ্চম পুনর্মিলনী। সে উপলক্ষে সাবেক শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, আলোচনা সভা, খেলাধুলা, র‍্যাফেল ড্র ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়াও পুনর্মিলনীতে আসা শিক্ষার্থীদের পরিবহন সেবা দেওয়া হবে।

 

পুনর্মিলনীর বিষয়ে জানতে চাইলে বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. শরিফ মুহাম্মদ আল-রেজা বলেন, ইতোপূর্বে ক্যাম্পাসের বাহিরে তিনবার পুনর্মিলনীর আয়োজন করেছি এবং ক্যাম্পাসে দ্বিতীয় বারের মতো এই আয়োজন করতে যাচ্ছি। একই সাথে বিভাগের সাবেক ছাত্র এবং সভাপতি হিসেবে আয়োজনটি করতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। এই আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য আমাদের বিভাগের শিক্ষার্থীরা একইসাথে মিলিত হবে, আড্ডা দিবে, নিজেদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নেচে-গেয়ে আনন্দ করার মাধ্যমে ক্যাম্পাসের স্মৃতিময় দিনে ফিরে যাবে।

 

এই বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী হিসেবে তিনি আরো বলেন, আমি এই বিভাগের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলাম। প্রাক্তন হিসেবে আমার মধ্যে এক অন্যরকম অনূভুতি কাজ করছে। যখন এই ভবনের কাজ শুরু হয়েছিল তখন থেকেই আমাদের ক্লাস শুরু হয়। তখন থেকে আমাদের জুনিয়র শিক্ষার্থীদের সাথে আমাদের এক মহব্বতপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠে। বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার মধ্য দিয়েও শিক্ষক শিক্ষার্থীদের আন্তরিকতায় সকলের নিরলস পরিশ্রমে এই আয়োজনের সফলতা পাবে ইনশাআল্লাহ।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৪:০৭:৩৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
১১৫ বার পড়া হয়েছে

ইবির ফলিতরসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের পুনর্মিলনী ২৪ ফেব্রুয়ারী

আপডেট সময় ০৪:০৭:৩৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত হতে যাছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের রজতজয়ন্তী ও ৫ম পুনর্মিলনী। পুনর্মিলনী উৎসব ঘিরে ফলিত বিজ্ঞান অনুষদ ভবন ও সংলগ্ন রাস্তার শোভা বাড়াচ্ছে লাল-নীল-হ্লুদ ঝাড়বাতি। বিভাগ প্রাঙ্গনে অঙ্কিত হচ্ছে রংবেরঙের আল্পনা।

 

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারী) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়কালে এসব জানান ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. শরিফ মুহাম্মদ আল-রেজা।

 

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, অনলাইনে গুগল ফর্মের মাধ্যমে সাবেক ২৭০ জন ও বর্তমানে অধ্যয়নরত প্রায় ৩০০ জন শিক্ষার্থী পুনর্মিলনীতে অংশগ্রহণ করবে বলে ইতোমধ্যে রেজিষ্ট্রেশন সম্পন্ন করেছে। এখানে সাবেক শিক্ষার্থীদের জন্য ২৫০০ টাকা এবং অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের সর্বনিম্ন ৭০০ টাকা চাঁদা নির্ধারণ করা হয়েছে। দু’দিন ব্যাপী এই আয়োজনে চলমান ৫ টি ব্যাচসহ সর্বমোট সাতাশটি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা অংশ নেবেন বলে জানা গেছে।

 

আরও জানা যায়, বিভাগের পক্ষ থেকে এটি পঞ্চম পুনর্মিলনী। সে উপলক্ষে সাবেক শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, আলোচনা সভা, খেলাধুলা, র‍্যাফেল ড্র ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়াও পুনর্মিলনীতে আসা শিক্ষার্থীদের পরিবহন সেবা দেওয়া হবে।

 

পুনর্মিলনীর বিষয়ে জানতে চাইলে বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. শরিফ মুহাম্মদ আল-রেজা বলেন, ইতোপূর্বে ক্যাম্পাসের বাহিরে তিনবার পুনর্মিলনীর আয়োজন করেছি এবং ক্যাম্পাসে দ্বিতীয় বারের মতো এই আয়োজন করতে যাচ্ছি। একই সাথে বিভাগের সাবেক ছাত্র এবং সভাপতি হিসেবে আয়োজনটি করতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। এই আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য আমাদের বিভাগের শিক্ষার্থীরা একইসাথে মিলিত হবে, আড্ডা দিবে, নিজেদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নেচে-গেয়ে আনন্দ করার মাধ্যমে ক্যাম্পাসের স্মৃতিময় দিনে ফিরে যাবে।

 

এই বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী হিসেবে তিনি আরো বলেন, আমি এই বিভাগের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলাম। প্রাক্তন হিসেবে আমার মধ্যে এক অন্যরকম অনূভুতি কাজ করছে। যখন এই ভবনের কাজ শুরু হয়েছিল তখন থেকেই আমাদের ক্লাস শুরু হয়। তখন থেকে আমাদের জুনিয়র শিক্ষার্থীদের সাথে আমাদের এক মহব্বতপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠে। বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার মধ্য দিয়েও শিক্ষক শিক্ষার্থীদের আন্তরিকতায় সকলের নিরলস পরিশ্রমে এই আয়োজনের সফলতা পাবে ইনশাআল্লাহ।