ঢাকা ০১:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে বিজয়ী ড. আনোয়ার ও ড. মামুনুর

ওয়াসিফ আল আবরার, ইবি

 

উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ শেষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (ইবিশিস) নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এতে ১২১ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষকদের সংগঠন শাপলা ফোরামের সদস্যদের মনোনীত ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন এবং সমসংখ্যক ১২১ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন শাপলা ফোরামের মনোনীত প্যানেলের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ মামুনুর রহমান।

মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ ভবনের ৪২৭ নং কক্ষে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে ভোটগ্রহণের পর গণনা শেষে রাত সাড়ে ১০ টার দিকে ফলাফল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক মোঃ মিজানুর রহমান।

নির্বাচিত অন্যান্য পদধারীদের মধ্যে ১২৩ ভোট পেয়ে সহ-সভাপতি পদে ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ, ১১২ ভোট পেয়ে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ড. ধনঞ্জয় কুমার, ১১৯ ভোট পেয়ে কোষাধ্যক্ষ পদে সিএসই বিভাগের অধ্যাপক মোঃ ইব্রাহিম আব্দুল্লাহ নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়া সদস্য পদে নির্বাচিত সদস্য যথাক্রমে কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. আহসান-উল-আম্বিয়া (১২৬), ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মিয়া মোঃ রাসিদুজ্জামান (১১৫), গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ আনিছুর রহমান (১২৬), ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কে.এম. শরফুদ্দিন (১২৫), আইন ও ভূমি ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাহিদা আখতার (১১৪), আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ শাহজাহান মন্ডল (১২৭), অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. দেবাশীষ শর্মা (১১১), গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ আসাদুজ্জামান (১১২), আল ফিকহ বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ আমজাদ হোসেন (১২২), মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক মোঃ মাজেদুল হক (১২০)।

সকাল ১০ টা থেকে ভোট গননা শুরু হয়ে শেষ হয় ২ টায়। নিরবিচ্ছিন্নভাবে ভোটগ্রহণ চলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ ভবনের ৪২৭ নম্বর কক্ষে। ৪০৮ জন ভোটারের মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ ২৮২ জন ভোটার। তারমধ্যে ৬ টি ভোট বাতিল হয়েছে।

নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোঃ মামুনুর রহমান বলেন, আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ উজ্জীবিত করে, প্রগতিশীলতার চর্চা করে এবং শাপলা ফোরামের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি রক্ষা ও অগ্রগতির জন্য অবদান রাখা, সার্বিকভাবে একাডেমিক পরিবেশ ভালো রাখা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ উন্নত করার লক্ষ্যে নিরলস ভাবে কাজ করে আমাদের শিক্ষক এবং ছাত্রদের প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করবো।

নবনির্বাচিত সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারো উৎসবমুখর পরিবেশে শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ নির্বাচনে প্রগতির জয় হয়েছে, শাপলা ফোরামের ই জয় হয়েছে। আমরা পৃথকভাবে নির্বাচন করার পরেও সেই একত্রে নির্বাচন করার অনুভূতিটাই অনুভূত হয়েছে। শিক্ষক সমাজের উন্নয়নে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থ নিয়ে আমরা কাজ করব। সবার মতামত নিয়ে কীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় কে আরো সুন্দর করা যায় সে প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৫:০১:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩
১৬২ বার পড়া হয়েছে

ইবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে বিজয়ী ড. আনোয়ার ও ড. মামুনুর

আপডেট সময় ০৫:০১:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩

 

উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ শেষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (ইবিশিস) নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এতে ১২১ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষকদের সংগঠন শাপলা ফোরামের সদস্যদের মনোনীত ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন এবং সমসংখ্যক ১২১ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন শাপলা ফোরামের মনোনীত প্যানেলের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ মামুনুর রহমান।

মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ ভবনের ৪২৭ নং কক্ষে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে ভোটগ্রহণের পর গণনা শেষে রাত সাড়ে ১০ টার দিকে ফলাফল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক মোঃ মিজানুর রহমান।

নির্বাচিত অন্যান্য পদধারীদের মধ্যে ১২৩ ভোট পেয়ে সহ-সভাপতি পদে ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ, ১১২ ভোট পেয়ে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ড. ধনঞ্জয় কুমার, ১১৯ ভোট পেয়ে কোষাধ্যক্ষ পদে সিএসই বিভাগের অধ্যাপক মোঃ ইব্রাহিম আব্দুল্লাহ নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়া সদস্য পদে নির্বাচিত সদস্য যথাক্রমে কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. আহসান-উল-আম্বিয়া (১২৬), ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মিয়া মোঃ রাসিদুজ্জামান (১১৫), গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ আনিছুর রহমান (১২৬), ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কে.এম. শরফুদ্দিন (১২৫), আইন ও ভূমি ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাহিদা আখতার (১১৪), আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ শাহজাহান মন্ডল (১২৭), অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. দেবাশীষ শর্মা (১১১), গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ আসাদুজ্জামান (১১২), আল ফিকহ বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ আমজাদ হোসেন (১২২), মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক মোঃ মাজেদুল হক (১২০)।

সকাল ১০ টা থেকে ভোট গননা শুরু হয়ে শেষ হয় ২ টায়। নিরবিচ্ছিন্নভাবে ভোটগ্রহণ চলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ ভবনের ৪২৭ নম্বর কক্ষে। ৪০৮ জন ভোটারের মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ ২৮২ জন ভোটার। তারমধ্যে ৬ টি ভোট বাতিল হয়েছে।

নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোঃ মামুনুর রহমান বলেন, আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ উজ্জীবিত করে, প্রগতিশীলতার চর্চা করে এবং শাপলা ফোরামের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি রক্ষা ও অগ্রগতির জন্য অবদান রাখা, সার্বিকভাবে একাডেমিক পরিবেশ ভালো রাখা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ উন্নত করার লক্ষ্যে নিরলস ভাবে কাজ করে আমাদের শিক্ষক এবং ছাত্রদের প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করবো।

নবনির্বাচিত সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারো উৎসবমুখর পরিবেশে শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ নির্বাচনে প্রগতির জয় হয়েছে, শাপলা ফোরামের ই জয় হয়েছে। আমরা পৃথকভাবে নির্বাচন করার পরেও সেই একত্রে নির্বাচন করার অনুভূতিটাই অনুভূত হয়েছে। শিক্ষক সমাজের উন্নয়নে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থ নিয়ে আমরা কাজ করব। সবার মতামত নিয়ে কীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় কে আরো সুন্দর করা যায় সে প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।