ঢাকা ১২:৫৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘চক্ষু শিবির কার্যক্রম, খুলনা ১২ নম্বর ওয়ার্ড’

মামুনর রশীদ রাজু, ব্যুরো চিফ (খুলনা)

 

চক্ষু শিবির কার্যক্রমে আজ সোমবার ২২শে জানুয়ারি খুলনা ১২ নম্বর ওয়ার্ড কার্যালয়ে ছিলো রোগীদের উপচে পড়া ভিড়। দুপুর ২টার আগেই সিরিয়ালে নাম লেখান ১২৬ জন রোগী। সকাল থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত চোখের বিভিন্ন প্রকার সমস্যার প্রাথমিক সেবা দানের এই কার্যক্রম চলে খুলনা কমিউনিটি আই হসপিটাল লিঃ এর পরিচালনায়।

চক্ষু শিবিরে ২০ টাকার বিনিময়ে চোখের প্রাথমিক সেবা গ্রহণের পর প্রথম ৭ দিনের মধ্য হাসপাতালে গেলে প্রথম ভিজিটে একটি ছাড় থাকলেও প্রয়োজনীয় পরবর্তী ধাপে রোগীদেরকে হাসপাতালের নিয়মিত নিয়ম মেনে অন্যান্য সেবা গ্রহণ করতে হবে।

ওয়ার্ড কমিশনার মাস্টার শফিকুল আলম বলেন, ওয়ার্ডবাসী যাদের হাসপাতালের হাজার টাকা ভিজিট দিয়ে চোখের সমস্যায় সেবা নেওয়ার সামর্থ্য নেই, তাদের জন্য ২০ টাকার বিনিময়ে প্রাথমিক এই সেবা ব্যবস্থ্যা ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য। এবং ওয়ার্ডবাসীর পক্ষ থেকে তিনি ডাক্তার এবং চক্ষু শিবির কার্যক্রম পরিচালনা কমিটিকে ধন্যবাদ জানান।

কম আয়ের মানুষদের জন্য এমন চক্ষু শিবির বারবার আয়োজনের আশা রেখে ডাঃ মাসুম বিল্লাহ বলেন, এখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর যাদের হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন তাদেরকে পরামর্শ ও ব্যবস্থা করে দেওয়া হচ্ছে এই চক্ষু শিবির থেকে। এবং মানুষের সেবা দানে- খরচে যতটা ছাড় দেওয়া সম্ভব ও পেশেন্ট ফ্রেন্ডলি হওয়ার বিশেষ প্রয়োজনীয়তার কথাও বলেন তিনি।

টেলিভিশন, ল্যাপটোপ, কম্পিউটার, মোবাইল স্ক্রিন একটানা ২০ মিনিটের বাশি ব্যবহার করা থেকে বিরত থকার পরামর্শ দেন ডাঃ মাসুম বিল্লাহ। এবং মাঝে মাঝেই স্ক্রিন থেকে চোখ সরিয়ে ২০ সেকেন্ড সময় ধরে দূরের কিছু দেখা বা পড়ার কথা মনে করিয়ে দিতে চান তিনি, বিশেষ করে বর্তমান মোবাইল প্রজন্মকে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৫:২৭:৪৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৪
১৫০ বার পড়া হয়েছে

‘চক্ষু শিবির কার্যক্রম, খুলনা ১২ নম্বর ওয়ার্ড’

আপডেট সময় ০৫:২৭:৪৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৪

 

চক্ষু শিবির কার্যক্রমে আজ সোমবার ২২শে জানুয়ারি খুলনা ১২ নম্বর ওয়ার্ড কার্যালয়ে ছিলো রোগীদের উপচে পড়া ভিড়। দুপুর ২টার আগেই সিরিয়ালে নাম লেখান ১২৬ জন রোগী। সকাল থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত চোখের বিভিন্ন প্রকার সমস্যার প্রাথমিক সেবা দানের এই কার্যক্রম চলে খুলনা কমিউনিটি আই হসপিটাল লিঃ এর পরিচালনায়।

চক্ষু শিবিরে ২০ টাকার বিনিময়ে চোখের প্রাথমিক সেবা গ্রহণের পর প্রথম ৭ দিনের মধ্য হাসপাতালে গেলে প্রথম ভিজিটে একটি ছাড় থাকলেও প্রয়োজনীয় পরবর্তী ধাপে রোগীদেরকে হাসপাতালের নিয়মিত নিয়ম মেনে অন্যান্য সেবা গ্রহণ করতে হবে।

ওয়ার্ড কমিশনার মাস্টার শফিকুল আলম বলেন, ওয়ার্ডবাসী যাদের হাসপাতালের হাজার টাকা ভিজিট দিয়ে চোখের সমস্যায় সেবা নেওয়ার সামর্থ্য নেই, তাদের জন্য ২০ টাকার বিনিময়ে প্রাথমিক এই সেবা ব্যবস্থ্যা ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য। এবং ওয়ার্ডবাসীর পক্ষ থেকে তিনি ডাক্তার এবং চক্ষু শিবির কার্যক্রম পরিচালনা কমিটিকে ধন্যবাদ জানান।

কম আয়ের মানুষদের জন্য এমন চক্ষু শিবির বারবার আয়োজনের আশা রেখে ডাঃ মাসুম বিল্লাহ বলেন, এখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর যাদের হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন তাদেরকে পরামর্শ ও ব্যবস্থা করে দেওয়া হচ্ছে এই চক্ষু শিবির থেকে। এবং মানুষের সেবা দানে- খরচে যতটা ছাড় দেওয়া সম্ভব ও পেশেন্ট ফ্রেন্ডলি হওয়ার বিশেষ প্রয়োজনীয়তার কথাও বলেন তিনি।

টেলিভিশন, ল্যাপটোপ, কম্পিউটার, মোবাইল স্ক্রিন একটানা ২০ মিনিটের বাশি ব্যবহার করা থেকে বিরত থকার পরামর্শ দেন ডাঃ মাসুম বিল্লাহ। এবং মাঝে মাঝেই স্ক্রিন থেকে চোখ সরিয়ে ২০ সেকেন্ড সময় ধরে দূরের কিছু দেখা বা পড়ার কথা মনে করিয়ে দিতে চান তিনি, বিশেষ করে বর্তমান মোবাইল প্রজন্মকে।