ঢাকা ১১:২৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে বিএনপির নেতাদের প্রকাশ্যে প্রচারপত্র বিলি

মোঃহাসানুর জামান বাবু, চট্টগ্রাম

দীর্ঘ দিন পর চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির নেতাদের প্রকাশ্যে প্রচারপত্র বিলি করতে দেখা গেল আজ।

গত ২৮ অক্টোবর-২৩ ঢাকায় নয় পল্টনে পুলিশ ও প্রশাসনে তাণ্ডবে বিএনপির মহাসমাবেশ পণ্ড ও দলের মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগী স্হায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ সহ কেন্দ্রীয় নেতাদের গ্রেপ্তারের পর বিএনপির অনেক হরতাল অবরোধ কর্মসূচি গেলেও দেশের অন্যান্য জেলা মহানগর উপজেলায় হাজারো মামলা হামলা মাথায় নিয়ে ছোট পরিসরে হলে কর্মসূচি পালন করতে দেখা গেছে বিভিন্ন জায়গায় চট্টগ্রাম মহানগরেও।কিন্তু চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার নেতাদের এই দীর্ঘ সময় প্রকাশ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি পালনে হরতাল অবরোধ কোন কর্মসূচিতে দেখা যায়নি।

তবে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার মহাসড়কে যুবদল নেতা ওহিদুল আলম পিপলু’র ও ছাত্রদল নেতা এসএম হোসেন নয়নের নেতৃত্বে রাজপথে মাঝেমধ্যে হরতাল অবরোধ সর্মথনে দিনে ঝটিকা মিটিল ও রাতে ঝটিকা মশাল মিছিল দেখা গেছে বেশ কয়েকবার,কিন্তু এতেদক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র কোন নেতাকে দেখা যায়নি। এমন কি ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসের কর্মসূচিতেও পটিয়াতে সাবেক এমপি গাজী শাহজাহান জুয়েল গ্রুপ ও এনামুল হক এনাম গ্রুপ আলাদা আলাদা কর্মসূচি পালন করলে সেখানেও দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক বা সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক কাউকেই দেখা যায়নি।

দক্ষিণ জেলা বিএনপির নেতারা রাজপথে না থাকলেও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিঃযুগ্ন আহবায়ক এনামুল হক এনাম সহ পটিয়ার বেশিরভাগ সিনিয়র নেতার বিরুদ্ধে এরমধ্য পটিয়া থানায়, কর্ণফুলী থানায়, সদরে কোতোয়ালী থানার মামলা হয়েছে তিনটি এবং সর্বশেষ গত ১৯ ডিসেম্বর-২৩ কুসুমপুরা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য বাদী হয়েও পশ্চিম পটিয়ার নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন পটিয়া থানায় এই মামলাতে রাজপথের বেশিরভাগ সক্রিয় নেতাকর্মীকে আসামী করা হয়েছে।

মূলত ২৮ অক্টোবর-২৩ ঢাকার নয়া পল্টন এলাকায় মিটিং পণ্ড হওয়ার পর বাড়ীতে ফেরার পথে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক দক্ষিণ জেলা ছাত্রদল সাবেক সেক্রেটারি কুসুমপুরা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রেজাউল করিম নেছার সহ ঐএলাকার বেশ কয়েকজন নেতা ঢাকায় গ্রেপ্তার হয়ে জেলে গেলে এবং পটিয়া থানার মামলায় এর আগে পটিয়া উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব খোরশেদ আলম গ্রেপ্তার হয়ে জেলে গেলে এবং অন্যান্য নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার কারনে মূলত দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র তৃনমূল সবনেতাকর্মী নেতৃত্ব শূন্যতার কারনে মাঠে নামতে সাহস পায়নি।

এরমধ্যে চট্টগ্রাম কারাগার থেকে মোঃ খোরশেদ আলম এবং ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে রেজাউল করিম নেছার জামিনে মুক্ত হয় এতেই মনেহয় সাহসও সঞ্চার হয়েছে তাই অন্যান্য নেতাদেরকেও আজ ২১ ডিসেম্বর-২৩ বৃহস্পতিবার বিকালে দীর্ঘদিন পর চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে চট্টগ্রাম চাক্তাই খাতুনগঞ্জ এলাকায় সরকারের পদত্যাগ, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের জন্য বর্তমান ঘোষিত তপশীল বাতিল, দলের মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের মুক্তি ডামি প্রার্থীর অবৈধ নির্বাচনে জনগণ কে অংশগ্রহণ না করাসহ বিভিন্ন দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি অসহযোগ আন্দোলনে সর্মথনে লিবলেট বিতরণ করতে দেখা যায়।তবে আজকের কর্মসূচিতে সদ্য কারামুক্ত বিএনপির নেতা মোঃ খোরশেদ আলমকে দেখা গেলেও সদ্য কারামুক্ত পটিয়ার জনপ্রিয় নেতা রেজাউল করিম নেছারকে দেখা যায়নি।

এসময় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দের সাথে বিএনপির কেন্দ্রী সাংগঠনিক সম্পাদক (চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত) মাহাবুল আলম শামীম উপস্থিত ছিলেন।অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সুফিয়ান,সিঃযুগ্ন আহবায়ক ও পটিয়া উপজেলা বিএনপির আহবায়ক জননেতা এনামুল হক এনাম,পটিয়া উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোঃ খোরশেদ আলমসহ দক্ষিণ জেলা বিএনপি যুবদল ছাত্রদল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০২:০৫:০২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ ডিসেম্বর ২০২৩
১৭৬ বার পড়া হয়েছে

চট্টগ্রামে বিএনপির নেতাদের প্রকাশ্যে প্রচারপত্র বিলি

আপডেট সময় ০২:০৫:০২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ ডিসেম্বর ২০২৩

দীর্ঘ দিন পর চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির নেতাদের প্রকাশ্যে প্রচারপত্র বিলি করতে দেখা গেল আজ।

গত ২৮ অক্টোবর-২৩ ঢাকায় নয় পল্টনে পুলিশ ও প্রশাসনে তাণ্ডবে বিএনপির মহাসমাবেশ পণ্ড ও দলের মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগী স্হায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ সহ কেন্দ্রীয় নেতাদের গ্রেপ্তারের পর বিএনপির অনেক হরতাল অবরোধ কর্মসূচি গেলেও দেশের অন্যান্য জেলা মহানগর উপজেলায় হাজারো মামলা হামলা মাথায় নিয়ে ছোট পরিসরে হলে কর্মসূচি পালন করতে দেখা গেছে বিভিন্ন জায়গায় চট্টগ্রাম মহানগরেও।কিন্তু চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার নেতাদের এই দীর্ঘ সময় প্রকাশ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি পালনে হরতাল অবরোধ কোন কর্মসূচিতে দেখা যায়নি।

তবে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার মহাসড়কে যুবদল নেতা ওহিদুল আলম পিপলু’র ও ছাত্রদল নেতা এসএম হোসেন নয়নের নেতৃত্বে রাজপথে মাঝেমধ্যে হরতাল অবরোধ সর্মথনে দিনে ঝটিকা মিটিল ও রাতে ঝটিকা মশাল মিছিল দেখা গেছে বেশ কয়েকবার,কিন্তু এতেদক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র কোন নেতাকে দেখা যায়নি। এমন কি ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসের কর্মসূচিতেও পটিয়াতে সাবেক এমপি গাজী শাহজাহান জুয়েল গ্রুপ ও এনামুল হক এনাম গ্রুপ আলাদা আলাদা কর্মসূচি পালন করলে সেখানেও দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক বা সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক কাউকেই দেখা যায়নি।

দক্ষিণ জেলা বিএনপির নেতারা রাজপথে না থাকলেও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিঃযুগ্ন আহবায়ক এনামুল হক এনাম সহ পটিয়ার বেশিরভাগ সিনিয়র নেতার বিরুদ্ধে এরমধ্য পটিয়া থানায়, কর্ণফুলী থানায়, সদরে কোতোয়ালী থানার মামলা হয়েছে তিনটি এবং সর্বশেষ গত ১৯ ডিসেম্বর-২৩ কুসুমপুরা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য বাদী হয়েও পশ্চিম পটিয়ার নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন পটিয়া থানায় এই মামলাতে রাজপথের বেশিরভাগ সক্রিয় নেতাকর্মীকে আসামী করা হয়েছে।

মূলত ২৮ অক্টোবর-২৩ ঢাকার নয়া পল্টন এলাকায় মিটিং পণ্ড হওয়ার পর বাড়ীতে ফেরার পথে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক দক্ষিণ জেলা ছাত্রদল সাবেক সেক্রেটারি কুসুমপুরা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রেজাউল করিম নেছার সহ ঐএলাকার বেশ কয়েকজন নেতা ঢাকায় গ্রেপ্তার হয়ে জেলে গেলে এবং পটিয়া থানার মামলায় এর আগে পটিয়া উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব খোরশেদ আলম গ্রেপ্তার হয়ে জেলে গেলে এবং অন্যান্য নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার কারনে মূলত দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র তৃনমূল সবনেতাকর্মী নেতৃত্ব শূন্যতার কারনে মাঠে নামতে সাহস পায়নি।

এরমধ্যে চট্টগ্রাম কারাগার থেকে মোঃ খোরশেদ আলম এবং ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে রেজাউল করিম নেছার জামিনে মুক্ত হয় এতেই মনেহয় সাহসও সঞ্চার হয়েছে তাই অন্যান্য নেতাদেরকেও আজ ২১ ডিসেম্বর-২৩ বৃহস্পতিবার বিকালে দীর্ঘদিন পর চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে চট্টগ্রাম চাক্তাই খাতুনগঞ্জ এলাকায় সরকারের পদত্যাগ, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের জন্য বর্তমান ঘোষিত তপশীল বাতিল, দলের মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের মুক্তি ডামি প্রার্থীর অবৈধ নির্বাচনে জনগণ কে অংশগ্রহণ না করাসহ বিভিন্ন দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি অসহযোগ আন্দোলনে সর্মথনে লিবলেট বিতরণ করতে দেখা যায়।তবে আজকের কর্মসূচিতে সদ্য কারামুক্ত বিএনপির নেতা মোঃ খোরশেদ আলমকে দেখা গেলেও সদ্য কারামুক্ত পটিয়ার জনপ্রিয় নেতা রেজাউল করিম নেছারকে দেখা যায়নি।

এসময় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দের সাথে বিএনপির কেন্দ্রী সাংগঠনিক সম্পাদক (চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত) মাহাবুল আলম শামীম উপস্থিত ছিলেন।অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সুফিয়ান,সিঃযুগ্ন আহবায়ক ও পটিয়া উপজেলা বিএনপির আহবায়ক জননেতা এনামুল হক এনাম,পটিয়া উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোঃ খোরশেদ আলমসহ দক্ষিণ জেলা বিএনপি যুবদল ছাত্রদল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।