ঢাকা ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চলন্ত ট্রেনে ধর্ষণ: গ্রেফতার ১

নিজস্ব সংবাদ

 

 

চলন্ত ট্রেন ‘লালমনি এক্সপ্রেসে’ ষষ্ঠ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ট্রেনটির অ্যাটেনডেন্টকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন লালমনিরহাট রেলওয়ে থানার (জিআরপি) ওসি ফেরদৌস আলী।

 

গ্রেপ্তার আক্কাছ গাজী বরিশাল সদরের শায়েস্তাবাদ সড়কের বাসিন্দা এবং তিনি সেলুন বেয়ারা (ভারপ্রাপ্ত অ্যাটেনডেন্ট) হিসেবে লালমনি ক্যারেজ অ্যান্ড ওয়াগন ডিপোতে কর্মরত।

এ ঘটনায় এএসআই রুহুল আমিন বাদী হয়ে ৯ (১) ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে রেলওয়ে থানায় মামলা হয়েছে।

 

‘ধর্ষণের শিকার’ কিশোরীর (১৩) বাড়ি ময়মনসিংহের এক উপজেলায়। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য এরই মধ্যে তাকে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

পুলিশ জানিয়েছে, কিশোরীর মা গাজীপুরে থেকে মেসে কাজ করেন। মেয়ে মাঝে মাঝে মায়ের সাথে দেখা করার জন্য গাজিপুর আসত,আবার কাজ শেষে চলে আসত বাড়িতে ।

 

মামলার তথ্য সূত্রে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার রাতে কিশোরী জয়দেবপুরে স্টেশনে আসে ময়মনসিংহে যাওয়ার জন্য। কিন্তু তার কাঙ্খিত ট্রেনের বিলম্ব ঘটে। পরে রাত সোয়া ১২টার দিকে ভুলবসত সে লালমনি এক্সপ্রেসে উঠে পড়ে।

রাত আড়াইটার দিকে অ্যাটেনডেন্ট আক্কাস গাজী কিশোরীর কাছে টিকেট চেকিংয়ের জন্য যান। টিকেট না পেয়ে তাকে একটি আসনে বসিয়ে দেন অ্যাটেনডেন্ট।

 

পরে সকাল ৮টার দিকে কিশোরীকে আসন থেকে তুলে একটি কেবিনে নিয়ে যান অ্যাটেনডেন্ট। ট্রেনটি লালমনিরহাটের তিস্তা স্টেশনে পৌঁছালে সেই কেবিন থেকে কান্নার আওয়াজ শুনে স্টেশনে থাকা পুলিশ সদস্যরা এগিয়ে আসে ।

 

তখন কিশোরীকে উদ্ধার এবং অ্যাটেনডেন্টকে পুলিশ আটক করে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

লালমনিরহাট জিআরপি থানার ওসি ফেরদৌস আলী বলেন, আক্কাস গাজীকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে লালমনিরহাট আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৮:৪৪:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২৪
৯৯ বার পড়া হয়েছে

চলন্ত ট্রেনে ধর্ষণ: গ্রেফতার ১

আপডেট সময় ০৮:৪৪:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২৪

 

 

চলন্ত ট্রেন ‘লালমনি এক্সপ্রেসে’ ষষ্ঠ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ট্রেনটির অ্যাটেনডেন্টকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন লালমনিরহাট রেলওয়ে থানার (জিআরপি) ওসি ফেরদৌস আলী।

 

গ্রেপ্তার আক্কাছ গাজী বরিশাল সদরের শায়েস্তাবাদ সড়কের বাসিন্দা এবং তিনি সেলুন বেয়ারা (ভারপ্রাপ্ত অ্যাটেনডেন্ট) হিসেবে লালমনি ক্যারেজ অ্যান্ড ওয়াগন ডিপোতে কর্মরত।

এ ঘটনায় এএসআই রুহুল আমিন বাদী হয়ে ৯ (১) ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে রেলওয়ে থানায় মামলা হয়েছে।

 

‘ধর্ষণের শিকার’ কিশোরীর (১৩) বাড়ি ময়মনসিংহের এক উপজেলায়। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য এরই মধ্যে তাকে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

পুলিশ জানিয়েছে, কিশোরীর মা গাজীপুরে থেকে মেসে কাজ করেন। মেয়ে মাঝে মাঝে মায়ের সাথে দেখা করার জন্য গাজিপুর আসত,আবার কাজ শেষে চলে আসত বাড়িতে ।

 

মামলার তথ্য সূত্রে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার রাতে কিশোরী জয়দেবপুরে স্টেশনে আসে ময়মনসিংহে যাওয়ার জন্য। কিন্তু তার কাঙ্খিত ট্রেনের বিলম্ব ঘটে। পরে রাত সোয়া ১২টার দিকে ভুলবসত সে লালমনি এক্সপ্রেসে উঠে পড়ে।

রাত আড়াইটার দিকে অ্যাটেনডেন্ট আক্কাস গাজী কিশোরীর কাছে টিকেট চেকিংয়ের জন্য যান। টিকেট না পেয়ে তাকে একটি আসনে বসিয়ে দেন অ্যাটেনডেন্ট।

 

পরে সকাল ৮টার দিকে কিশোরীকে আসন থেকে তুলে একটি কেবিনে নিয়ে যান অ্যাটেনডেন্ট। ট্রেনটি লালমনিরহাটের তিস্তা স্টেশনে পৌঁছালে সেই কেবিন থেকে কান্নার আওয়াজ শুনে স্টেশনে থাকা পুলিশ সদস্যরা এগিয়ে আসে ।

 

তখন কিশোরীকে উদ্ধার এবং অ্যাটেনডেন্টকে পুলিশ আটক করে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

লালমনিরহাট জিআরপি থানার ওসি ফেরদৌস আলী বলেন, আক্কাস গাজীকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে লালমনিরহাট আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।