ঢাকা ০৫:৩৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র মঞ্চ ও সমমনা দল গুলোর বিক্ষোভ

ইমান আলী, ঢাকা

১২ জানুয়ারি (শুক্রবার) রাজধানী ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ পূর্ববর্তী সমাবেশ করেন ,গণতন্ত্র মঞ্চ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল , (জে এস ডি ) মাওলানা ভাসানী পরিষদ, সহ আরো অন্যান্য সমমনা দলগুলো।

শুক্রবার বিকেল তিনটার দিকে বিক্ষোভ পূর্ববর্তী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জুনায়েদ সাকি ,মাহমুদুর রহমান মান্না, বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বাবলু সহ আরো অন্যান্য নেতৃবৃন্দ৷  নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দানকালে বলেন,গত ৭ তারিখে যে প্রহসনের নির্বাচন হয়েছে, যে ডামি নির্বাচন হয়েছে, জনগণ তা ঘৃণা ভরে প্রত্যাখ্যান করেছে সেজন্য আমরা জনগণকে ধন্যবাদ জানাই।

তারা বলেন, ৭ ই জানুয়ারি আপনারা যে একতরফা ইলেকশন নামের ডাকাতি দেখেছেন, যেখানে জনগণের উপস্থিতি একদম নাই বললেই চলে, কোন কোন জায়গায় মোটামুটি উপস্থিতই ছিল কিন্তু সেই কেন্দ্রগুলো প্রার্থীর একান্তই নিজ কেন্দ্র। তাছাড়া প্রায় সোয়া দুইশত কেন্দ্রতে ২ পার্সেন্ট ভোট পড়েছে । সেটা সাংবাদিক খালিদ মহিউদ্দিন নিশ্চিত করেছে।আপনারা আরো দেখেছেন ৭ তারিখ যে তামাশার নির্বাচন হয়ে গেছে, সেখানে শিশুরা পর্যন্ত ভোট দিয়েছে, দেশের আইন-কানুন আজ কোথায়? সামান্য শিশুরা পর্যন্ত ভোট দিতে যেতে পারে? ৭ তারিখ বিকাল তিনটার দিকে নির্বাচন কমিশন যখন ভোটের পারসেন্টেন্স হিসাব করতে গেলেন দেখেন ২৮ পার্সেন্ট ভোট হয়ে গেছে, ২৮ পার্সেন্ট ভোট নিয়ে সরকার হতাশ, সরকারের উপর মহল থেকে নির্বাচন কমিশনের ঘুম ভাঙিয়ে দেওয়া হলো, ঘুম ভাঙ্গার সাথে সাথে এক ঘন্টার মধ্যে সেই ২৮ পার্সেন্ট ভোটকে ৪০% এ রূপান্তরিত করা হলো।

আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী জনাব ওবায়দুল কাদেরের সমালোচনা করে বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব খেলতে চান, কিন্তু সে খেলে গোল দিতে পারেন না। বল গোলের কাছে নিয়ে দিলে তখন গোল দিতে পারেন। খেলোয়ার ছাড়া খেলতে আগ্রহী, মাঠে খেলোয়ার থাকলে তিনি খেলতে নারাজ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিভিন্ন বক্তব্যর প্রতি উত্তরে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভেবেছেন যে, আমরা একতরফা নির্বাচন করেছি, সংসদে এসেছি, শপথ নিয়েছি, আর আমাদের সব শেষ হয়ে গেছে। কিন্তু তা কখনোই নয়, আমরা আপনার পদত্যাগ করা আগ পর্যন্ত রাজপথ ছাড়বো না।আপনি কি ভেবেছেন আপনাকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে আর সবকিছু শেষ হয়ে গেছে ? আপনি হয়তোবা ভালো করেই জানেন, আপনাকে মাত্র তিনটি দেশ অভিনন্দন জানিয়েছে ।আপনারা যে প্রহসনের নির্বাচন করেছেন সেটা বহির্বিশ্বে গ্রহণযোগ্য হয়নি। অতএব পদত্যাগ করতে প্রস্তুত থাকুন। আমরা আপনার পদত্যাগ করেই কেবল রাজপথ ছাড়বো।

বিক্ষোভ পূর্ববর্তী সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিলটি প্রেসক্লাবের সামনে হতে শুরু করেন। বিক্ষোভ মিছিলটি জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে শুরু হয়ে ,পল্টন ,জিপিও ,জিরো পয়েন্ট মোড়, বায়তুল মোকাররম মার্কেট হয়ে, পল্টন মোড়ে এসে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যর মাধ্যমে সমাপ্ত হয়।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ১১:৫৮:০৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০২৪
১০০ বার পড়া হয়েছে

নির্বাচনের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র মঞ্চ ও সমমনা দল গুলোর বিক্ষোভ

আপডেট সময় ১১:৫৮:০৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০২৪

১২ জানুয়ারি (শুক্রবার) রাজধানী ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ পূর্ববর্তী সমাবেশ করেন ,গণতন্ত্র মঞ্চ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল , (জে এস ডি ) মাওলানা ভাসানী পরিষদ, সহ আরো অন্যান্য সমমনা দলগুলো।

শুক্রবার বিকেল তিনটার দিকে বিক্ষোভ পূর্ববর্তী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জুনায়েদ সাকি ,মাহমুদুর রহমান মান্না, বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বাবলু সহ আরো অন্যান্য নেতৃবৃন্দ৷  নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দানকালে বলেন,গত ৭ তারিখে যে প্রহসনের নির্বাচন হয়েছে, যে ডামি নির্বাচন হয়েছে, জনগণ তা ঘৃণা ভরে প্রত্যাখ্যান করেছে সেজন্য আমরা জনগণকে ধন্যবাদ জানাই।

তারা বলেন, ৭ ই জানুয়ারি আপনারা যে একতরফা ইলেকশন নামের ডাকাতি দেখেছেন, যেখানে জনগণের উপস্থিতি একদম নাই বললেই চলে, কোন কোন জায়গায় মোটামুটি উপস্থিতই ছিল কিন্তু সেই কেন্দ্রগুলো প্রার্থীর একান্তই নিজ কেন্দ্র। তাছাড়া প্রায় সোয়া দুইশত কেন্দ্রতে ২ পার্সেন্ট ভোট পড়েছে । সেটা সাংবাদিক খালিদ মহিউদ্দিন নিশ্চিত করেছে।আপনারা আরো দেখেছেন ৭ তারিখ যে তামাশার নির্বাচন হয়ে গেছে, সেখানে শিশুরা পর্যন্ত ভোট দিয়েছে, দেশের আইন-কানুন আজ কোথায়? সামান্য শিশুরা পর্যন্ত ভোট দিতে যেতে পারে? ৭ তারিখ বিকাল তিনটার দিকে নির্বাচন কমিশন যখন ভোটের পারসেন্টেন্স হিসাব করতে গেলেন দেখেন ২৮ পার্সেন্ট ভোট হয়ে গেছে, ২৮ পার্সেন্ট ভোট নিয়ে সরকার হতাশ, সরকারের উপর মহল থেকে নির্বাচন কমিশনের ঘুম ভাঙিয়ে দেওয়া হলো, ঘুম ভাঙ্গার সাথে সাথে এক ঘন্টার মধ্যে সেই ২৮ পার্সেন্ট ভোটকে ৪০% এ রূপান্তরিত করা হলো।

আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী জনাব ওবায়দুল কাদেরের সমালোচনা করে বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব খেলতে চান, কিন্তু সে খেলে গোল দিতে পারেন না। বল গোলের কাছে নিয়ে দিলে তখন গোল দিতে পারেন। খেলোয়ার ছাড়া খেলতে আগ্রহী, মাঠে খেলোয়ার থাকলে তিনি খেলতে নারাজ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিভিন্ন বক্তব্যর প্রতি উত্তরে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভেবেছেন যে, আমরা একতরফা নির্বাচন করেছি, সংসদে এসেছি, শপথ নিয়েছি, আর আমাদের সব শেষ হয়ে গেছে। কিন্তু তা কখনোই নয়, আমরা আপনার পদত্যাগ করা আগ পর্যন্ত রাজপথ ছাড়বো না।আপনি কি ভেবেছেন আপনাকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে আর সবকিছু শেষ হয়ে গেছে ? আপনি হয়তোবা ভালো করেই জানেন, আপনাকে মাত্র তিনটি দেশ অভিনন্দন জানিয়েছে ।আপনারা যে প্রহসনের নির্বাচন করেছেন সেটা বহির্বিশ্বে গ্রহণযোগ্য হয়নি। অতএব পদত্যাগ করতে প্রস্তুত থাকুন। আমরা আপনার পদত্যাগ করেই কেবল রাজপথ ছাড়বো।

বিক্ষোভ পূর্ববর্তী সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিলটি প্রেসক্লাবের সামনে হতে শুরু করেন। বিক্ষোভ মিছিলটি জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে শুরু হয়ে ,পল্টন ,জিপিও ,জিরো পয়েন্ট মোড়, বায়তুল মোকাররম মার্কেট হয়ে, পল্টন মোড়ে এসে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যর মাধ্যমে সমাপ্ত হয়।