ঢাকা ১২:৩৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘পাহাড়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর ব্যাংক ডাকাতি সরকারের হরিলুটের প্রতিফলন’- রিজভী

নিজস্ব সংবাদ

 

সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর ব্যাংক ডাকাতি ও লুটপাট সরকারের হরিলুটের প্রতিফলন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

বৃহস্পতিবার (০৪ এপ্রিল) সাম্প্রতিক ঘটনার প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

রিজভী বলেন, সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় দেশজুড়ে যে হরিলুট চলছে, তারই প্রতিফলন হচ্ছে পাহাড়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সাম্প্রতিক সময়ের ব্যাংক ডাকাতি ও লুটপাট। সরকারের ঘনিষ্টজনদের সীমাহীন দুর্নীতি, লুটপাট ও টাকা পাচারে ঘটনা দেখে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী উৎসাহিত হয়ে পাহাড়ে ব্যাংক ডাকাতি বা লুটপাটের ঘটনা ঘটাচ্ছে। সরকারের নতজানু নীতির কারণে বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী পাহাড়ে সন্ত্রাসের অভয়ারণ্য সৃষ্টি করেছে। সমাজে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির জন্য অগণতান্ত্রিক সরকার দায়ী।

পাহাড়ের সন্ত্রাসী ঘটনা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশে যখন গণবিরোধী সরকার থাকে তখন দেশের অভ্যন্তরে নানা সন্ত্রাসীগোষ্ঠী জন্ম নেয়। আর পাহাড়ের সন্ত্রাসের ঘটনায় যে সরকারের ইনভলমেন্ট নেই সেটাও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। এটি অত্যন্ত রহস্যজনক। তারা জনদৃষ্টিকে ভিন্ন খাতে নিতে এ ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে কি না তাও বলা যাচ্ছে না। কারণ, দেশে বর্তমানে ভয়াবহ সংকট চলছে। চারদিকে অভাব অনটন, ব্যাংক হরিলুট, অর্থ পাচার, দ্রব্যমূল্যের সীমাহীন ঊর্ধ্বগতি, সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস, সীমান্তে লাগাতার হত্যা ইত্যাদি।

বিএনপির এই সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, রাষ্ট্র যখন নিজেই লুটেরাদের ভূমিকা পালন করে, দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের ওপর ভর করে ক্ষমতায় থাকতে চায় সেটা দেখে তো সমাজে পেশাগত ডাকাতরা উৎসাহিত হবেই। ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রী এমপিরা এখন বিদেশের মাটিতে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলারের মালিক, এ খবর গণমাধ্যমে আপনারা দেখেছেন। একজন এমপির বিদেশে কয়েকশ বাড়ি এটি চিন্তা করা যায়? সুতরাং সমাজের পেশাগত ডাকাতরা তো উৎসাহিত হবেই।

রিজভী বলেন, ক্ষমতাসীনরা লাখ লাখ কোটি টাকা পাচার করে বেগম পাড়া, সেকেন্ড হোম তৈরি করেছে। তারা মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে দেশে স্বৈরতন্ত্র কায়েম করেছে। বিশ্ববাসী এ অগণতান্ত্রিক সরকারকে স্বীকৃতি দেয়নি।

আজ যে শিশু জন্ম নিচ্ছে তার মাথায়ও এক লাখ টাকা ঋণ এমন মন্তব্য করে রিজভী বলেন, অভাবের তাড়নায় বা হাসপাতালের বিল পরিশোধ না করতে পেরে মা তার শিশুকে বাজারে নিয়ে বিক্রি করে দিচ্ছেন। সব মিলিয়ে এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি। তা আড়াল করতেও সরকার নানা ঘটনা ঘটাতে পারে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৮:৪৫:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ এপ্রিল ২০২৪
১৯৩ বার পড়া হয়েছে

‘পাহাড়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর ব্যাংক ডাকাতি সরকারের হরিলুটের প্রতিফলন’- রিজভী

আপডেট সময় ০৮:৪৫:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ এপ্রিল ২০২৪

 

সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর ব্যাংক ডাকাতি ও লুটপাট সরকারের হরিলুটের প্রতিফলন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

বৃহস্পতিবার (০৪ এপ্রিল) সাম্প্রতিক ঘটনার প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

রিজভী বলেন, সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় দেশজুড়ে যে হরিলুট চলছে, তারই প্রতিফলন হচ্ছে পাহাড়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সাম্প্রতিক সময়ের ব্যাংক ডাকাতি ও লুটপাট। সরকারের ঘনিষ্টজনদের সীমাহীন দুর্নীতি, লুটপাট ও টাকা পাচারে ঘটনা দেখে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী উৎসাহিত হয়ে পাহাড়ে ব্যাংক ডাকাতি বা লুটপাটের ঘটনা ঘটাচ্ছে। সরকারের নতজানু নীতির কারণে বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী পাহাড়ে সন্ত্রাসের অভয়ারণ্য সৃষ্টি করেছে। সমাজে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির জন্য অগণতান্ত্রিক সরকার দায়ী।

পাহাড়ের সন্ত্রাসী ঘটনা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশে যখন গণবিরোধী সরকার থাকে তখন দেশের অভ্যন্তরে নানা সন্ত্রাসীগোষ্ঠী জন্ম নেয়। আর পাহাড়ের সন্ত্রাসের ঘটনায় যে সরকারের ইনভলমেন্ট নেই সেটাও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। এটি অত্যন্ত রহস্যজনক। তারা জনদৃষ্টিকে ভিন্ন খাতে নিতে এ ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে কি না তাও বলা যাচ্ছে না। কারণ, দেশে বর্তমানে ভয়াবহ সংকট চলছে। চারদিকে অভাব অনটন, ব্যাংক হরিলুট, অর্থ পাচার, দ্রব্যমূল্যের সীমাহীন ঊর্ধ্বগতি, সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস, সীমান্তে লাগাতার হত্যা ইত্যাদি।

বিএনপির এই সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, রাষ্ট্র যখন নিজেই লুটেরাদের ভূমিকা পালন করে, দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের ওপর ভর করে ক্ষমতায় থাকতে চায় সেটা দেখে তো সমাজে পেশাগত ডাকাতরা উৎসাহিত হবেই। ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রী এমপিরা এখন বিদেশের মাটিতে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলারের মালিক, এ খবর গণমাধ্যমে আপনারা দেখেছেন। একজন এমপির বিদেশে কয়েকশ বাড়ি এটি চিন্তা করা যায়? সুতরাং সমাজের পেশাগত ডাকাতরা তো উৎসাহিত হবেই।

রিজভী বলেন, ক্ষমতাসীনরা লাখ লাখ কোটি টাকা পাচার করে বেগম পাড়া, সেকেন্ড হোম তৈরি করেছে। তারা মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে দেশে স্বৈরতন্ত্র কায়েম করেছে। বিশ্ববাসী এ অগণতান্ত্রিক সরকারকে স্বীকৃতি দেয়নি।

আজ যে শিশু জন্ম নিচ্ছে তার মাথায়ও এক লাখ টাকা ঋণ এমন মন্তব্য করে রিজভী বলেন, অভাবের তাড়নায় বা হাসপাতালের বিল পরিশোধ না করতে পেরে মা তার শিশুকে বাজারে নিয়ে বিক্রি করে দিচ্ছেন। সব মিলিয়ে এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি। তা আড়াল করতেও সরকার নানা ঘটনা ঘটাতে পারে।