ঢাকা ০৬:২৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পিরোজপুরে নৌকার কর্মীদের হামলায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মীর মৃত্যু

নিজস্ব সংবাদ

পিরোজপুর সদর উপজেলার বটতলা এলাকায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় আহত স্বতন্ত্র প্রার্থীর এক কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মারা যাওয়া ওই কর্মীর নাম লালন ফকির (২৭)।

তিনি পিরোজপুর পৌরসভার মধ্য ডুমুরিয়া মহল্লার আবদুল হান্নান ফকিরের ছেলে।  স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম এ আউয়ালের কর্মী ছিলেন লালন।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার সন্ধ্যায় পিরোজপুর সদর উপজেলার রানীপুর গ্রামের বটতলা এলাকায় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য প্রার্থী এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের একটি নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম এ আউয়ালের কর্মীরা। এ ঘটনার জের ধরে শ ম রেজাউল করিমের ১০ থেকে ১২ জন সমর্থক এ কে এম এ আউয়ালের কর্মী লালন ফকিরের ওপর হামলা করেন।

হামলায় লালন ফকিরের ডান পা, হাত ও বুকে জখম হয়। স্থানীয় ব্যক্তিরা উদ্ধার করে লালন ফকিরকে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ওই রাতে তাঁকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সোমবার সন্ধ্যায় সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। লালন ফকিরের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৬:০০:২৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০২৩
৯১ বার পড়া হয়েছে

পিরোজপুরে নৌকার কর্মীদের হামলায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মীর মৃত্যু

আপডেট সময় ০৬:০০:২৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০২৩

পিরোজপুর সদর উপজেলার বটতলা এলাকায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় আহত স্বতন্ত্র প্রার্থীর এক কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মারা যাওয়া ওই কর্মীর নাম লালন ফকির (২৭)।

তিনি পিরোজপুর পৌরসভার মধ্য ডুমুরিয়া মহল্লার আবদুল হান্নান ফকিরের ছেলে।  স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম এ আউয়ালের কর্মী ছিলেন লালন।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার সন্ধ্যায় পিরোজপুর সদর উপজেলার রানীপুর গ্রামের বটতলা এলাকায় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য প্রার্থী এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের একটি নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম এ আউয়ালের কর্মীরা। এ ঘটনার জের ধরে শ ম রেজাউল করিমের ১০ থেকে ১২ জন সমর্থক এ কে এম এ আউয়ালের কর্মী লালন ফকিরের ওপর হামলা করেন।

হামলায় লালন ফকিরের ডান পা, হাত ও বুকে জখম হয়। স্থানীয় ব্যক্তিরা উদ্ধার করে লালন ফকিরকে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ওই রাতে তাঁকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সোমবার সন্ধ্যায় সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। লালন ফকিরের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে।