ঢাকা ০১:৩৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে গোদনাইল পদ্মা ডিপোতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

হাসান আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে অবস্থিত গোদনাইল পদ্মা ডিপোতে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি)’র নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান ও জ্বালানি সচিবের আগমনের সংবাদ সংগ্রহে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে দৈনিক দেশ বর্তমান ও আনন্দ বাজারের নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি আহসানুল হাবিব সোহাগ লাঞ্ছনার শিকার হয়েছেন।

গোদনাইল পদ্মা ডিপোর সিকিউরিটি গার্ড নায়েক মাসুদুর রহমান কর্তৃক তিনি লাঞ্ছনার শিকার হন। পরে তিনি বাধ্য হয়ে ডিপো থেকে বের হয়ে যান।

এবিষয়ে সাংবাদিক আহসান হাবিব জানান, বুধবার সকালে গোদনাইলের মেঘনা ও পদ্মা ডিপোতে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি)’র নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান আমিন উল আহসান ও জ্বালানি সচিবের ডিপো পরিদর্শনের খবর পেয়ে সংবাদ সংগ্রহের জন্য আমি পদ্মা ডিপোতে যাই।

সেখানে যাওয়ার পর দায়িত্বরত সিকিউরিটি গার্ড নায়েক মাসুদুর রহমান আমাকে প্রথমে প্রবেশে বাঁধা প্রদান করেন এবং বড় স্যারের অনুমতি নিয়ে আসবেন বলে আমাকে জানান। আমি গার্ডের রুমে অনুমতির অপেক্ষায় থাকার কিছুক্ষণ পর তিনি এসে বলেন বড় স্যার অনুমতি দেননি। আপনি বের হয়ে যান।

এমতাবস্থায় সাংবাদিকদের কাজে এভাবে কারও বাঁধা প্রদান করা ঠিক নয় এ বিষয়ে তাঁকে অবহিত করলে তিনি আরও ক্ষিপ্ত হয়ে যান এবং অসৌজন্যমূলক মূলক আচরণ করতে শুরু করেন। তিনি আমাকে বলেন, ‘সাংবাদিকদের ভেতরে ঢোকানো মানে খাল কেটে কুমির আনা। কয়েক মাস আগে আপনাদের সাংবাদিকরা ভিতরে ঢুকে নানান ভিডিও করে নিয়ে গেছে।সেসব ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভিতে তালাশে দেখাইসেন।

ডিপোর জ্বালানী তেল লুটপাটসহ শতকোটি টাকার দুর্নীতির বিশাল সিন্ডিকেট নিয়ে রিপোর্ট করে আমাদের স্যার শাহজাহান কবির চৌধুরীর চাকরি খাইছেন। শুধু কি একজনের চাকরি খাইছেন কয়েকজনের চাকরি খাইছেন আপনারা সাংবাদিকরা। নতুন বড় স্যারের কড়া নির্দেশ আছে কোনো সাংবাদিক যেনো ভিতরে ঢুকতে না পারে।’

এদিকে সংবাদ সংগ্রহের কাজে সাংবাদিক প্রবেশে বাঁধা দেওয়ার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক বিল্লাল হোসেন রবিন বলেন, সংবাদ সংগ্রহ ও প্রচার একজন সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব।সাংবাদিকরা সংবাদ সংগ্রহ করে সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করে দেশের গণতন্ত্র ও মানবাধিকার রক্ষায় সর্বদা সচেষ্ট ভূমিকা পালন করে।

তথ্য অধিকার আইনে প্রত্যেক সংবাদকর্মীর তথ্যের অধিকার পাওয়ার অধিকার রয়েছে। এটিকে বাধাগ্রস্থ করা স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য হুমকি। এসময় তিনি সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাধা না দেয়ার আহ্বান জানান।’

এবিষয়ে যোগাযোগ করা হলে গোদনাইল পদ্মা ডিপোর ব্যবস্থাপক অপারেশন্স পেয়ার আহাম্মদ জানান, ‘ডিপোর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আমি আসার আগে ঐ যে একটা (ইন্ডিপেন্ডেন্ট চ্যানেলে) রিপোর্ট হয়েছে সে কারণে এরপর থেকে উপর মহলের নির্দেশ ডিপোতে সাংবাদিক প্রবেশ করতে দিতে না।

আমি আসার পর কোনো সাংবাদিক এখন আর আসে না। ওদেরও বলা আছে এ ব্যাপারে প্রবেশ করতে দিতে না।’

এদিকে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় সাংবাদিক সোহাগকে লাঞ্চিতের প্রতিবাদ জানিয়েছে নারায়ণগঞ্জ ও সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ১২:৪৫:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মে ২০২৪
৩৩ বার পড়া হয়েছে

পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে গোদনাইল পদ্মা ডিপোতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

আপডেট সময় ১২:৪৫:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মে ২০২৪

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে অবস্থিত গোদনাইল পদ্মা ডিপোতে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি)’র নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান ও জ্বালানি সচিবের আগমনের সংবাদ সংগ্রহে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে দৈনিক দেশ বর্তমান ও আনন্দ বাজারের নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি আহসানুল হাবিব সোহাগ লাঞ্ছনার শিকার হয়েছেন।

গোদনাইল পদ্মা ডিপোর সিকিউরিটি গার্ড নায়েক মাসুদুর রহমান কর্তৃক তিনি লাঞ্ছনার শিকার হন। পরে তিনি বাধ্য হয়ে ডিপো থেকে বের হয়ে যান।

এবিষয়ে সাংবাদিক আহসান হাবিব জানান, বুধবার সকালে গোদনাইলের মেঘনা ও পদ্মা ডিপোতে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি)’র নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান আমিন উল আহসান ও জ্বালানি সচিবের ডিপো পরিদর্শনের খবর পেয়ে সংবাদ সংগ্রহের জন্য আমি পদ্মা ডিপোতে যাই।

সেখানে যাওয়ার পর দায়িত্বরত সিকিউরিটি গার্ড নায়েক মাসুদুর রহমান আমাকে প্রথমে প্রবেশে বাঁধা প্রদান করেন এবং বড় স্যারের অনুমতি নিয়ে আসবেন বলে আমাকে জানান। আমি গার্ডের রুমে অনুমতির অপেক্ষায় থাকার কিছুক্ষণ পর তিনি এসে বলেন বড় স্যার অনুমতি দেননি। আপনি বের হয়ে যান।

এমতাবস্থায় সাংবাদিকদের কাজে এভাবে কারও বাঁধা প্রদান করা ঠিক নয় এ বিষয়ে তাঁকে অবহিত করলে তিনি আরও ক্ষিপ্ত হয়ে যান এবং অসৌজন্যমূলক মূলক আচরণ করতে শুরু করেন। তিনি আমাকে বলেন, ‘সাংবাদিকদের ভেতরে ঢোকানো মানে খাল কেটে কুমির আনা। কয়েক মাস আগে আপনাদের সাংবাদিকরা ভিতরে ঢুকে নানান ভিডিও করে নিয়ে গেছে।সেসব ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভিতে তালাশে দেখাইসেন।

ডিপোর জ্বালানী তেল লুটপাটসহ শতকোটি টাকার দুর্নীতির বিশাল সিন্ডিকেট নিয়ে রিপোর্ট করে আমাদের স্যার শাহজাহান কবির চৌধুরীর চাকরি খাইছেন। শুধু কি একজনের চাকরি খাইছেন কয়েকজনের চাকরি খাইছেন আপনারা সাংবাদিকরা। নতুন বড় স্যারের কড়া নির্দেশ আছে কোনো সাংবাদিক যেনো ভিতরে ঢুকতে না পারে।’

এদিকে সংবাদ সংগ্রহের কাজে সাংবাদিক প্রবেশে বাঁধা দেওয়ার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক বিল্লাল হোসেন রবিন বলেন, সংবাদ সংগ্রহ ও প্রচার একজন সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব।সাংবাদিকরা সংবাদ সংগ্রহ করে সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করে দেশের গণতন্ত্র ও মানবাধিকার রক্ষায় সর্বদা সচেষ্ট ভূমিকা পালন করে।

তথ্য অধিকার আইনে প্রত্যেক সংবাদকর্মীর তথ্যের অধিকার পাওয়ার অধিকার রয়েছে। এটিকে বাধাগ্রস্থ করা স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য হুমকি। এসময় তিনি সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাধা না দেয়ার আহ্বান জানান।’

এবিষয়ে যোগাযোগ করা হলে গোদনাইল পদ্মা ডিপোর ব্যবস্থাপক অপারেশন্স পেয়ার আহাম্মদ জানান, ‘ডিপোর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আমি আসার আগে ঐ যে একটা (ইন্ডিপেন্ডেন্ট চ্যানেলে) রিপোর্ট হয়েছে সে কারণে এরপর থেকে উপর মহলের নির্দেশ ডিপোতে সাংবাদিক প্রবেশ করতে দিতে না।

আমি আসার পর কোনো সাংবাদিক এখন আর আসে না। ওদেরও বলা আছে এ ব্যাপারে প্রবেশ করতে দিতে না।’

এদিকে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় সাংবাদিক সোহাগকে লাঞ্চিতের প্রতিবাদ জানিয়েছে নারায়ণগঞ্জ ও সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।