ঢাকা ০৮:৩৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ ও ভারতে সক্রিয় কিডনি পাচার চক্র, দিল্লিতে চিকিৎসক গ্রেফতার

মামুনুর রশীদ রাজু, ব্যুরো চিফ

বাংলাদেশ ও ভারতের কিডনি পাচার চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নয়াদিল্লি-ভিত্তিক ইন্দ্রপ্রস্থ অ্যাপোলো হাসপাতালের এক নারী চিকিৎসককে গ্রেফতার করেছে দিল্লি পুলিশ। ৫০ বছর বয়সি ওই চিকিৎসকের নাম ডা. বিজয়া কুমার।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের একটি প্রতিবেদন বলছে, অ্যাপোলো হাসপাতালের ওই নারী চিকিৎসক নয়াদিল্লি সংলগ্ন নয়ডা শহরে ‘যথার্থ’ নামের একটি হাসপাতালে অপারেশনের নামে অন্তত ১৫ থেকে ১৬ জন ব্যক্তির কিডনি সরিয়েছেন।

অ্যাপোলোর পাশাপাশি নয়ডার ‘যথার্থ’ হাসপাতালের ভিজিটিং কনসালটেন্ট ও সার্জন এই ডা. বিজয়া কুমার। তিনি যাদের কিডনি সরিয়েছেন, তাদের অধিকাংশই বাংলাদেশের নাগরিক। ২০২১ থেকে ২০২৩ সালের বিভিন্ন সময়ের মধ্যে এসব অপারেশন করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সক্রিয় এই চক্র মধ্যবর্তী ব্যক্তি বা দালালদের মাধ্যমে দরিদ্র বাংলাদেশিদের অর্থের লোভ দেখিয়ে নয়াদিল্লির আশপাশের কিছু হাসপাতালে নিয়ে আসত। এবং সেসব হাসপাতালে চক্রের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা বাংলাদেশিদের কিডনি অপসারণ করতেন।

দিল্লিতে সক্রিয় রয়েছে একাধিক কিডনি পাচারকারী চক্র। ডা. বিজয়া কুমারির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট চক্রের অধিকাংশই বাংলাদেশি। গত মাসে নয়াদিল্লি থেকে এই চক্রের তিনজন বাংলাদেশি নাগরিককে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশ।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০১:১৫:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০২৪
৪৫ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশ ও ভারতে সক্রিয় কিডনি পাচার চক্র, দিল্লিতে চিকিৎসক গ্রেফতার

আপডেট সময় ০১:১৫:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০২৪

বাংলাদেশ ও ভারতের কিডনি পাচার চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নয়াদিল্লি-ভিত্তিক ইন্দ্রপ্রস্থ অ্যাপোলো হাসপাতালের এক নারী চিকিৎসককে গ্রেফতার করেছে দিল্লি পুলিশ। ৫০ বছর বয়সি ওই চিকিৎসকের নাম ডা. বিজয়া কুমার।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের একটি প্রতিবেদন বলছে, অ্যাপোলো হাসপাতালের ওই নারী চিকিৎসক নয়াদিল্লি সংলগ্ন নয়ডা শহরে ‘যথার্থ’ নামের একটি হাসপাতালে অপারেশনের নামে অন্তত ১৫ থেকে ১৬ জন ব্যক্তির কিডনি সরিয়েছেন।

অ্যাপোলোর পাশাপাশি নয়ডার ‘যথার্থ’ হাসপাতালের ভিজিটিং কনসালটেন্ট ও সার্জন এই ডা. বিজয়া কুমার। তিনি যাদের কিডনি সরিয়েছেন, তাদের অধিকাংশই বাংলাদেশের নাগরিক। ২০২১ থেকে ২০২৩ সালের বিভিন্ন সময়ের মধ্যে এসব অপারেশন করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সক্রিয় এই চক্র মধ্যবর্তী ব্যক্তি বা দালালদের মাধ্যমে দরিদ্র বাংলাদেশিদের অর্থের লোভ দেখিয়ে নয়াদিল্লির আশপাশের কিছু হাসপাতালে নিয়ে আসত। এবং সেসব হাসপাতালে চক্রের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা বাংলাদেশিদের কিডনি অপসারণ করতেন।

দিল্লিতে সক্রিয় রয়েছে একাধিক কিডনি পাচারকারী চক্র। ডা. বিজয়া কুমারির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট চক্রের অধিকাংশই বাংলাদেশি। গত মাসে নয়াদিল্লি থেকে এই চক্রের তিনজন বাংলাদেশি নাগরিককে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশ।