ঢাকা ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বেড়ায় নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে নৌকার এজেন্টকে জরিমানা

ওয়াসিফ আল আবরার

নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে ৬৮, পাবনা ১ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী ও জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার এ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর নির্বাচনী এজেন্ট মো: রমজান আলীকে আর্থিক জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুর ১২ টার দিকে বেড়া পৌর এলাকার সিএন্ডবি বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন নির্বাচনী কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচন আচরণ বিধিমালার ৭ নং ধারার ৩ নং উপধারা অনুযায়ী নগদ একহাজার টাকা জরিমানা আদায় ও ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ রিফাতুল হক।

বেড়ার সিএন্ডবি বাসস্ট্যান্ডে দীর্ঘদিন যাবত আঞ্চলিক কার্যালয় স্থাপন করে রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন পাবনা জেলা পরিষদের সদস্য মাসুদ রানা ময়সার সহ বেড়া পৌর মেয়র ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে স্থানটি পাবনা ১ আসনের এমপি ও ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর নির্বাচনী কার্যালয়ে পরিণত হয়। কার্যালয়ে নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়ে টানানো ব্যানারে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর ছবি ছাড়াও বেড়া পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট আসিফ শামস রঞ্জনের ছবি ছিল যা নির্বাচনের আচরণবিধির লঙ্ঘন।

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আয়োজনের স্বার্থে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের এক নিয়মিত অভিযানে কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মো: রমজান আলীকে নির্বাচনী আচরণবিধির ভঙ্গের ব্যাপারে অবগত করে তাকে আর্থিক জরিমানা প্রদান এবং ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এসময় তার সাথে সাথিয়া ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা এবং বিজিবি সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব রিফাতুল হক বলেন, ওনারা কার্যালয়ের ভেতরে নৌকা মার্কায় ভোট দিন লেখা যে ব্যানারটি টানিয়েছেন তাতে নির্বাচনের প্রার্থী ও দলীয় প্রধান ছাড়াও আরো একজনের ছবি দেখা যাচ্ছে যা নির্বাচনী আচরণ বিধিমালার সুস্পষ্ট ব্যাত্যয়। তাই শাস্তিস্বরূপ একহাজার টাকা আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। একইসাথে, সড়ক ও জনপথের জায়গায় অফিস করার অনুমতি আছে কিনা, তা দেখাতে বলা হয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশ নিশ্চিত করার স্বার্থে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৮:৫১:০৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩
৪৯৯ বার পড়া হয়েছে

বেড়ায় নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে নৌকার এজেন্টকে জরিমানা

আপডেট সময় ০৮:৫১:০৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩

নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে ৬৮, পাবনা ১ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী ও জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার এ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর নির্বাচনী এজেন্ট মো: রমজান আলীকে আর্থিক জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুর ১২ টার দিকে বেড়া পৌর এলাকার সিএন্ডবি বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন নির্বাচনী কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচন আচরণ বিধিমালার ৭ নং ধারার ৩ নং উপধারা অনুযায়ী নগদ একহাজার টাকা জরিমানা আদায় ও ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ রিফাতুল হক।

বেড়ার সিএন্ডবি বাসস্ট্যান্ডে দীর্ঘদিন যাবত আঞ্চলিক কার্যালয় স্থাপন করে রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন পাবনা জেলা পরিষদের সদস্য মাসুদ রানা ময়সার সহ বেড়া পৌর মেয়র ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে স্থানটি পাবনা ১ আসনের এমপি ও ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর নির্বাচনী কার্যালয়ে পরিণত হয়। কার্যালয়ে নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়ে টানানো ব্যানারে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর ছবি ছাড়াও বেড়া পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট আসিফ শামস রঞ্জনের ছবি ছিল যা নির্বাচনের আচরণবিধির লঙ্ঘন।

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আয়োজনের স্বার্থে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের এক নিয়মিত অভিযানে কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মো: রমজান আলীকে নির্বাচনী আচরণবিধির ভঙ্গের ব্যাপারে অবগত করে তাকে আর্থিক জরিমানা প্রদান এবং ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এসময় তার সাথে সাথিয়া ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা এবং বিজিবি সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব রিফাতুল হক বলেন, ওনারা কার্যালয়ের ভেতরে নৌকা মার্কায় ভোট দিন লেখা যে ব্যানারটি টানিয়েছেন তাতে নির্বাচনের প্রার্থী ও দলীয় প্রধান ছাড়াও আরো একজনের ছবি দেখা যাচ্ছে যা নির্বাচনী আচরণ বিধিমালার সুস্পষ্ট ব্যাত্যয়। তাই শাস্তিস্বরূপ একহাজার টাকা আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। একইসাথে, সড়ক ও জনপথের জায়গায় অফিস করার অনুমতি আছে কিনা, তা দেখাতে বলা হয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশ নিশ্চিত করার স্বার্থে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।