ঢাকা ১২:৩৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারতে ৪ হাজারের গন্ডি পেরলো করোনা ভাইরাস

নিজস্ব সংবাদ

সোমবার ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, ভারতে এক দিনে ৬২৮টি নতুন কোভিড -১৯ কেস বেড়েছে। এই নিয়ে সক্রিয় কেসের সংখ্যা বাড়তে বাড়তে ৪ হাজারের গণ্ডি অতিক্রম করেছে। সারা দেশে সাব-ভেরিয়েন্ট JN.1 কেস বৃদ্ধির সাথে সাথে নতুন করে বাড়ছে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা। বর্তমানে কোভিডের সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৪ হাজার ৫৪। ২৪ ঘণ্টা আগে যা ছিল ৩,৭৪২। এর মধ্যে অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি কেরেলাতে। শুধু কেরেলাতেই সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩০০০ টপকে গেল। কেরালায় একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, যেখানে কোভিড উপ-ভেরিয়েন্ট JN.1 প্রথম শনাক্ত করা হয়েছিল। দেশব্যাপী মৃতের সংখ্যা ৫ লক্ষ ৩৩ হাজার ৩৩৪-এ পৌঁছালো। অন্যান্য রাজ্য যেখানে সক্রিয় কেস বেড়েছে সেগুলির মধ্যে রয়েছে কর্ণাটক (৭৩), মহারাষ্ট্র (৫০), রাজস্থান (১১), তামিলনাড়ু (৯) এবং তেলেঙ্গানা (৮)।

নতুন সংক্রমণের রিপোর্টের সাথে দেশের মোট কোভিড শনাক্তের সংখ্যা পৌঁছালো ৪.৫০ কোটি। বড়দিন, বর্ষবরণের ভিড়কে মাথায় রেখে দেশজুড়ে সতর্কতা অবলম্বন করছে প্রশাসনও। যদিও এর মধ্যয়ে স্বস্তি দিচ্ছে সুস্থতার হার। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনামুক্ত হয়েছেন ৩১৫ জন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্যে বলা হয়েছে, সুস্থতার হার ৯৮.৮১ শতাংশ রেকর্ড করা হয়েছে যেখানে মৃত্যুর হার ১.১৮ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এদিকে, মহারাষ্ট্রের থানে ৩০ নভেম্বর থেকে পরীক্ষিত ২০টি নমুনার মধ্যে JN.1 এর পাঁচটি কেস প্রত্যক্ষ করেছে, JN.1 ভেরিয়েন্টে সংক্রমিত রোগীদের মধ্যে একজন নারী রয়েছে। তবে এদের কাউকেই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি। শহরে সক্রিয় কোভিড-১৯ শনাক্তের সংখ্যা ২৮। তাদের মধ্যে দুজনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে, বাকিরা তাদের বাড়িতে সুস্থ হয়ে উঠছে। কেন্দ্রীয় সরকার বলেছে যে কোভিড -১৯ এর বর্তমান স্পাইক উদ্বেগের কারণ নয় এবং জনগণকে আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। তবুও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে কমরোবিডিটিযুক্ত লোকদের মাস্ক পরার জন্য পরামর্শ দিয়েছে কেন্দ্র।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলেছেন যে ভারতে JN.1 ভ্যারিয়েন্টের কারণে কোনও মামলার ক্লাস্টারিং দেখা যায়নি। সমস্ত ক্ষেত্রেই হালকা উপসর্গ পাওয়া গেছে এবং রোগীরা কোনো জটিলতা ছাড়াই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। JN.1, কে Omicron গোষ্ঠীর মধ্যে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে, গত কয়েক সপ্তাহে এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসগুলির মধ্যে একটি হয়ে উঠেছে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ১২:৩৭:৩৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০২৩
২৫৪ বার পড়া হয়েছে

ভারতে ৪ হাজারের গন্ডি পেরলো করোনা ভাইরাস

আপডেট সময় ১২:৩৭:৩৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০২৩

সোমবার ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, ভারতে এক দিনে ৬২৮টি নতুন কোভিড -১৯ কেস বেড়েছে। এই নিয়ে সক্রিয় কেসের সংখ্যা বাড়তে বাড়তে ৪ হাজারের গণ্ডি অতিক্রম করেছে। সারা দেশে সাব-ভেরিয়েন্ট JN.1 কেস বৃদ্ধির সাথে সাথে নতুন করে বাড়ছে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা। বর্তমানে কোভিডের সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৪ হাজার ৫৪। ২৪ ঘণ্টা আগে যা ছিল ৩,৭৪২। এর মধ্যে অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি কেরেলাতে। শুধু কেরেলাতেই সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩০০০ টপকে গেল। কেরালায় একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, যেখানে কোভিড উপ-ভেরিয়েন্ট JN.1 প্রথম শনাক্ত করা হয়েছিল। দেশব্যাপী মৃতের সংখ্যা ৫ লক্ষ ৩৩ হাজার ৩৩৪-এ পৌঁছালো। অন্যান্য রাজ্য যেখানে সক্রিয় কেস বেড়েছে সেগুলির মধ্যে রয়েছে কর্ণাটক (৭৩), মহারাষ্ট্র (৫০), রাজস্থান (১১), তামিলনাড়ু (৯) এবং তেলেঙ্গানা (৮)।

নতুন সংক্রমণের রিপোর্টের সাথে দেশের মোট কোভিড শনাক্তের সংখ্যা পৌঁছালো ৪.৫০ কোটি। বড়দিন, বর্ষবরণের ভিড়কে মাথায় রেখে দেশজুড়ে সতর্কতা অবলম্বন করছে প্রশাসনও। যদিও এর মধ্যয়ে স্বস্তি দিচ্ছে সুস্থতার হার। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনামুক্ত হয়েছেন ৩১৫ জন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্যে বলা হয়েছে, সুস্থতার হার ৯৮.৮১ শতাংশ রেকর্ড করা হয়েছে যেখানে মৃত্যুর হার ১.১৮ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এদিকে, মহারাষ্ট্রের থানে ৩০ নভেম্বর থেকে পরীক্ষিত ২০টি নমুনার মধ্যে JN.1 এর পাঁচটি কেস প্রত্যক্ষ করেছে, JN.1 ভেরিয়েন্টে সংক্রমিত রোগীদের মধ্যে একজন নারী রয়েছে। তবে এদের কাউকেই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি। শহরে সক্রিয় কোভিড-১৯ শনাক্তের সংখ্যা ২৮। তাদের মধ্যে দুজনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে, বাকিরা তাদের বাড়িতে সুস্থ হয়ে উঠছে। কেন্দ্রীয় সরকার বলেছে যে কোভিড -১৯ এর বর্তমান স্পাইক উদ্বেগের কারণ নয় এবং জনগণকে আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। তবুও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে কমরোবিডিটিযুক্ত লোকদের মাস্ক পরার জন্য পরামর্শ দিয়েছে কেন্দ্র।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলেছেন যে ভারতে JN.1 ভ্যারিয়েন্টের কারণে কোনও মামলার ক্লাস্টারিং দেখা যায়নি। সমস্ত ক্ষেত্রেই হালকা উপসর্গ পাওয়া গেছে এবং রোগীরা কোনো জটিলতা ছাড়াই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। JN.1, কে Omicron গোষ্ঠীর মধ্যে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে, গত কয়েক সপ্তাহে এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসগুলির মধ্যে একটি হয়ে উঠেছে।