ঢাকা ১০:৩২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভোটার উপস্থিতি “ইসির” জন্য বড় চ্যালেঞ্জ

নিজস্ব সংবাদ

চারিদিকে নির্বাচনী আমেজ, রাতটুকু শুধু অপেক্ষা। রাত পোহালেই অনুষ্ঠিত হবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০২৪। আগামীকাল ৭ জানুয়ারি (রোববার) এ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ লক্ষ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণ করতে কোনো কিছুর কমতি রাখছে না নির্বাচন কমিশন।

তারপরও শঙ্কা, ভোটাররা নির্বাচনে ভোট দিতে আসবেন তো! ‘ভোটার উপস্থিতি’ নিশ্চিত করাই বর্তমান কমিশনের বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। কারণ, দেশের রাজনীতিতে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ দল বিএনপি নির্বাচন বর্জন করেছে। পাশাপাশি তাদের শরিকরাও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না। এ ছাড়া, বিভিন্ন কারণে ভোটের প্রতি মানুষের আগ্রহ কমে যাওয়ায় আউয়াল কমিশনকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোটার আনার চ্যালেঞ্জে পড়তে হতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে, প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি নিশ্চিত করতে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছেন প্রার্থীরাও।

সর্বশেষ ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গড়ে ৮০ শতাংশ ভোট পড়ে। নির্বাচনে ২৯৮টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা ২৫৯টিতে জয়ী হন। তাদের শরিক দলগুলো ২৯টি আসনে জয়লাভ করে। আওয়ামী লীগসহ শরিক দলগুলো মিলে গঠিত মহাজোট ওই নির্বাচনে মোট ২৮৮টি আসন পায়। ফলে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মাত্র সাতটি আসনে জয়ী হয়।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ১০:৪০:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৪
৭৫ বার পড়া হয়েছে

ভোটার উপস্থিতি “ইসির” জন্য বড় চ্যালেঞ্জ

আপডেট সময় ১০:৪০:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৪

চারিদিকে নির্বাচনী আমেজ, রাতটুকু শুধু অপেক্ষা। রাত পোহালেই অনুষ্ঠিত হবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০২৪। আগামীকাল ৭ জানুয়ারি (রোববার) এ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ লক্ষ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণ করতে কোনো কিছুর কমতি রাখছে না নির্বাচন কমিশন।

তারপরও শঙ্কা, ভোটাররা নির্বাচনে ভোট দিতে আসবেন তো! ‘ভোটার উপস্থিতি’ নিশ্চিত করাই বর্তমান কমিশনের বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। কারণ, দেশের রাজনীতিতে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ দল বিএনপি নির্বাচন বর্জন করেছে। পাশাপাশি তাদের শরিকরাও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না। এ ছাড়া, বিভিন্ন কারণে ভোটের প্রতি মানুষের আগ্রহ কমে যাওয়ায় আউয়াল কমিশনকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোটার আনার চ্যালেঞ্জে পড়তে হতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে, প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি নিশ্চিত করতে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছেন প্রার্থীরাও।

সর্বশেষ ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গড়ে ৮০ শতাংশ ভোট পড়ে। নির্বাচনে ২৯৮টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা ২৫৯টিতে জয়ী হন। তাদের শরিক দলগুলো ২৯টি আসনে জয়লাভ করে। আওয়ামী লীগসহ শরিক দলগুলো মিলে গঠিত মহাজোট ওই নির্বাচনে মোট ২৮৮টি আসন পায়। ফলে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মাত্র সাতটি আসনে জয়ী হয়।