ঢাকা ০৭:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

যারা আগুন দিতে যাবে তাদের পুলিশে দিন: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব সংবাদ
শেখ হাসিনা বলেন, “এক সময় বলেছিল নির্বাচন হতে দেবে না। উসকানি আছে যে, নির্বাচন ঠেকাও। নির্বাচনের শিডিউল হয়ে গেছে। এখন তারা মনে করছে নির্বাচন হয়েই যাবে।”

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে যাতে কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে, সেজন্য সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গোপালগঞ্জ সফরের দ্বিতীয় দিন শুক্রবার সকালে নিজ নির্বাচনি এলাকা কোটালীপাড়ায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মত বিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “নির্বাচনে যাতে কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে, সেজন্য সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। যারা আগুন দিতে যাবে তাদেরকে ধরে পুলিশের সোপর্দ করতে হবে।

“প্রত্যন্ত এলাকায় সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। যদি আগুন সন্ত্রাসী বেশি হয়, তাহলে তাদের প্রতিহত করে আগুনেই ফেলে দিতে হবে।

শুক্রবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে কোটালীপাড়া পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সেখানে কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে প্রায় দুই ঘণ্টা নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে আবার টুঙ্গিপাড়ায় ফিরে যান।

বিএনপি কীভাবে নির্বাচন করবে প্রশ্ন তুলে সরকার প্রধান বলেন, “বিএনপির নেতা কে? তাদের কোনো নেতা নেই। বিএনপি চিন্তা করেছিল নির্বাচন হবে না, এখন নির্বাচন হয়ে যাচ্ছে।

“এক সময় বলেছিল নির্বাচন হতে দেবে না। উসকানি আছে যে, নির্বাচন ঠেকাও। নির্বাচনের শিডিউল হয়ে গেছে। এখন তারা মনে করছে নির্বাচন হয়েই যাবে।”

নির্বাচন করতে না পেরে বিএনপি মার্চ মাসের দিকে দেশে ‘দুর্ভিক্ষ ঘটানোর’ পরিকল্পনা করছে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ১২:৪১:০৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২৩
৫৮ বার পড়া হয়েছে

যারা আগুন দিতে যাবে তাদের পুলিশে দিন: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় ১২:৪১:০৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২৩
শেখ হাসিনা বলেন, “এক সময় বলেছিল নির্বাচন হতে দেবে না। উসকানি আছে যে, নির্বাচন ঠেকাও। নির্বাচনের শিডিউল হয়ে গেছে। এখন তারা মনে করছে নির্বাচন হয়েই যাবে।”

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে যাতে কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে, সেজন্য সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গোপালগঞ্জ সফরের দ্বিতীয় দিন শুক্রবার সকালে নিজ নির্বাচনি এলাকা কোটালীপাড়ায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মত বিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “নির্বাচনে যাতে কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে, সেজন্য সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। যারা আগুন দিতে যাবে তাদেরকে ধরে পুলিশের সোপর্দ করতে হবে।

“প্রত্যন্ত এলাকায় সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। যদি আগুন সন্ত্রাসী বেশি হয়, তাহলে তাদের প্রতিহত করে আগুনেই ফেলে দিতে হবে।

শুক্রবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে কোটালীপাড়া পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সেখানে কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে প্রায় দুই ঘণ্টা নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে আবার টুঙ্গিপাড়ায় ফিরে যান।

বিএনপি কীভাবে নির্বাচন করবে প্রশ্ন তুলে সরকার প্রধান বলেন, “বিএনপির নেতা কে? তাদের কোনো নেতা নেই। বিএনপি চিন্তা করেছিল নির্বাচন হবে না, এখন নির্বাচন হয়ে যাচ্ছে।

“এক সময় বলেছিল নির্বাচন হতে দেবে না। উসকানি আছে যে, নির্বাচন ঠেকাও। নির্বাচনের শিডিউল হয়ে গেছে। এখন তারা মনে করছে নির্বাচন হয়েই যাবে।”

নির্বাচন করতে না পেরে বিএনপি মার্চ মাসের দিকে দেশে ‘দুর্ভিক্ষ ঘটানোর’ পরিকল্পনা করছে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।