ঢাকা ০৮:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সরস্বতী পূজাকে কেন্দ্র করে জবিতে চলতে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি

আরাফাতুল হক চৌধুরী, জবি
রাতপোহালে সরস্বতী পূজা। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি)’তে সরস্বতী পূজা উদযাপনের উপলক্ষ্যে চলছে শেষ মুহুর্তের পূজা প্রস্তুতি। এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৩টি বিভাগ, ২টি ইনস্টিটিউট ও বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল সহ মোট ৩৬টি মন্ডপে সরস্বতী পূজা উদযাপন করা হবে।
পূজা উপলক্ষে নানান আলপনা ও বর্ণিল আলোকসজ্জায় রঙিন আমেজ ফুটে উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস জুড়ে। শেষ মুহুর্তে ব্যস্ত সময় পার করছেন সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা।
সরেজমিনে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্ত চত্বর,নতুন একাডেমিক ভবনের নিচতলা, বিজ্ঞান অনুষদ চত্বর, ভাষা শহীদ রফিক ভবন, কলা ভবন ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সামনে একেক বিভাগের মন্ডপ সাজানো হয়েছে। এসব মন্ডপে প্রতিমা স্থাপন, সাজসজ্জা সহ নানান রকমের আলপনা আঁকা হচ্ছে।
গত কয়েকদিন থেকেই পূজার জন্য আনুষঙ্গিক কাজ করা হলেও মঙ্গলবার শিক্ষার্থীদের ব্যস্ততা ছিল চোখে পড়ার মত। প্রতিটি বিভাগই পরস্পরের চেয়ে সুন্দর পূজা উদযাপনের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ভিন্ন ফ্রেম,ব্যানার,স্টেজ ও সজ্জায় একেক মন্ডপ একেক রূপে ফুটে উঠেছে।
শাস্ত্রমতে, সরস্বতী হলেন জ্ঞান, বিদ্যা, সংস্কৃতি ও শুদ্ধতার দেবী। শুভ্র বসন, হংস-সম্বলিত, পুস্তক ও বীণাধারিণী এই দেবী বাঙালির মানসলোকে এমন এক প্রতিমূর্তিতে বিরাজিত, যেখানে কোনো অন্ধকার নেই, নেই অজ্ঞনতা বা সংস্কারের কালো ছায়া।
পূজা মন্ডপে শেষ মুহুর্তের কাজে ব্যস্ত কয়েকজন সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থী বলেন, আমরা গত কয়েকদিন থেকেই পূজার জন্য সার্বিক কাজ করছি।  পুরোদমে পূজার মণ্ডপ তৈরিতে কাজ করছি। এবারও সুন্দরভাবে পূজা উদযাপন করতে পারবো বলে প্রত্যাশা করছি।
সরস্বতী পূজা নির্বিঘ্নে উদযাপনে প্রক্টরিয়াল বডির পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসন ক্যাম্পাসে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. সুরঞ্জন কুমার দাস বলেন, এবার মোট ৩৬টি মন্ডপে সরস্বতী পূজা উদযাপন করা হবে। রাতে আলপনা করা ও মন্ডপগুলো প্রস্তুতের আনুষঙ্গিক কাজ চলবে। ইতোমধ্যেই আলোকসজ্জা করা হয়েছে ক্যাম্পাস। আশা করি এবার সুন্দরভাবে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজা উদযাপন করতে পারবো।
জবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. মোস্তফা কামাল বলেন, সরস্বতী পূজা উপলক্ষে প্রক্টরিয়াল বডি ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে মিটিং করা হয়েছে। পূজায় সবাই সতর্ক অবস্থানে থাকবে। সুষ্ঠুভাবেই পূজা উদযাপন সম্ভব হবে।
ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ১০:৪৫:২৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
৪৩ বার পড়া হয়েছে

সরস্বতী পূজাকে কেন্দ্র করে জবিতে চলতে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি

আপডেট সময় ১০:৪৫:২৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
রাতপোহালে সরস্বতী পূজা। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি)’তে সরস্বতী পূজা উদযাপনের উপলক্ষ্যে চলছে শেষ মুহুর্তের পূজা প্রস্তুতি। এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৩টি বিভাগ, ২টি ইনস্টিটিউট ও বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল সহ মোট ৩৬টি মন্ডপে সরস্বতী পূজা উদযাপন করা হবে।
পূজা উপলক্ষে নানান আলপনা ও বর্ণিল আলোকসজ্জায় রঙিন আমেজ ফুটে উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস জুড়ে। শেষ মুহুর্তে ব্যস্ত সময় পার করছেন সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা।
সরেজমিনে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্ত চত্বর,নতুন একাডেমিক ভবনের নিচতলা, বিজ্ঞান অনুষদ চত্বর, ভাষা শহীদ রফিক ভবন, কলা ভবন ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সামনে একেক বিভাগের মন্ডপ সাজানো হয়েছে। এসব মন্ডপে প্রতিমা স্থাপন, সাজসজ্জা সহ নানান রকমের আলপনা আঁকা হচ্ছে।
গত কয়েকদিন থেকেই পূজার জন্য আনুষঙ্গিক কাজ করা হলেও মঙ্গলবার শিক্ষার্থীদের ব্যস্ততা ছিল চোখে পড়ার মত। প্রতিটি বিভাগই পরস্পরের চেয়ে সুন্দর পূজা উদযাপনের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ভিন্ন ফ্রেম,ব্যানার,স্টেজ ও সজ্জায় একেক মন্ডপ একেক রূপে ফুটে উঠেছে।
শাস্ত্রমতে, সরস্বতী হলেন জ্ঞান, বিদ্যা, সংস্কৃতি ও শুদ্ধতার দেবী। শুভ্র বসন, হংস-সম্বলিত, পুস্তক ও বীণাধারিণী এই দেবী বাঙালির মানসলোকে এমন এক প্রতিমূর্তিতে বিরাজিত, যেখানে কোনো অন্ধকার নেই, নেই অজ্ঞনতা বা সংস্কারের কালো ছায়া।
পূজা মন্ডপে শেষ মুহুর্তের কাজে ব্যস্ত কয়েকজন সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থী বলেন, আমরা গত কয়েকদিন থেকেই পূজার জন্য সার্বিক কাজ করছি।  পুরোদমে পূজার মণ্ডপ তৈরিতে কাজ করছি। এবারও সুন্দরভাবে পূজা উদযাপন করতে পারবো বলে প্রত্যাশা করছি।
সরস্বতী পূজা নির্বিঘ্নে উদযাপনে প্রক্টরিয়াল বডির পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসন ক্যাম্পাসে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. সুরঞ্জন কুমার দাস বলেন, এবার মোট ৩৬টি মন্ডপে সরস্বতী পূজা উদযাপন করা হবে। রাতে আলপনা করা ও মন্ডপগুলো প্রস্তুতের আনুষঙ্গিক কাজ চলবে। ইতোমধ্যেই আলোকসজ্জা করা হয়েছে ক্যাম্পাস। আশা করি এবার সুন্দরভাবে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজা উদযাপন করতে পারবো।
জবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. মোস্তফা কামাল বলেন, সরস্বতী পূজা উপলক্ষে প্রক্টরিয়াল বডি ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে মিটিং করা হয়েছে। পূজায় সবাই সতর্ক অবস্থানে থাকবে। সুষ্ঠুভাবেই পূজা উদযাপন সম্ভব হবে।