ঢাকা ০৫:১৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্মৃতিসৌধে স্পীকার, সংসদ উপনেতা, ডেপুটি স্পীকার ও চীফ হুইপের শ্রদ্ধা

আনোয়ার সুলতান, সাভার

 

জাতীয় সংসদের স্পীকার, সংসদ উপনেতা, ডেপুটি স্পীকার ও চীফ হুইপ সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) বিকেল ৪ টায় সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধের শহীদ বেদীতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন স্পীকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী, ডেপুটি স্পীকার অ্যাড: শামসুল হক টুকু ও চীফ হুইপ নুরে আলম চৌধুরী লিটনসহ হুইপগণ।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা-১৯ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান আসাদ প্রমুখ।

জাতীয় স্মৃতিসৌধের বেদীতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সংসদের স্পীকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী বলেন, আমাদের দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয়েছে। আমি বাংলাদেশের সকল জনগণকে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। গতকাল থেকে আমাদের দ্বাদশ জাতীয় সংসদের অধিবেশন শুরু হয়েছে। আপনারা দেখেছেন প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি এসেছেন। সংবিধান অনুযায়ী তিনি ভাষন দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপরেই সংসদে সংসদ সদস্যদের আলোচনা চলমান থাকবে। এছাড়া আমাদের অন্যান্য যে কাজ কার্যপ্রনালী বিধির সংবিধান অনুযায়ী প্রশ্ন জিজ্ঞাসা, জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে নোটিশ প্রদান থেকে শুরু করে মাননীয় সংসদ সদস্যের অংশগ্রহণমূলক যে কার্যপ্রনালী সেগুলো অধিবেশনে চলমান থাকবে। আপনারা জানেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হানিনা টানা চারবারের প্রধানমন্ত্রীসহ মোট ৫ বারের প্রধানমন্ত্রী এবং তিনি জাতীয় সংসদ নেতা হিসাবে জাতীয় সংসদ পরিচালনার সাথে তাঁর যে রুপকল্প, আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত সমৃদ্ধ স্মার্ট সোনার বাংলা গড়ে তোলা, সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নে জাতীয় সংসদও কাজ করে যাবে।

 

তিনি আরও বলেন, আমাদের সংসদে সরকারি দল আছে, বিরোধী দল আছে, স্বতন্ত্র সদস্য আছেন, এছাড়া আরও দুটো তিনটে পার্টির একজন করে সংসদ সদস্য আছেন। সংসদ সদস্য যারা বিরোধী দলে আছেন এবং স্বতন্ত্র আছেন, তাদেরকে কথা বলার সুযোগ দেব। প্রত্যেক কার্যক্রমে তারা অংশ গ্রহণের সুযোগ পাবেন, প্রশ্ন জিজ্ঞাসা-উত্তরে তারা মাননীয় মন্ত্রীদেরকে প্রশ্ন করতে পারবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বুধবারে যে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা-উত্তর সেখানেও অংশগ্রহণ করতে পারবেন। বিভিন্ন নোটিশ দিতে পারবেন অর্থাৎ একটা সংসদীয় গণতন্ত্রকে সুষ্ঠুভাবে এগিয়ে নেয়ার জন্য বিরোধী দল এবং স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যদের যে ভূমিকা, সেটা যাতে তারা সুষ্ঠু ভাবে পালন করতে পারেন আমি সেই দায়িত্ব স্পীকার হিসেবে যথাযথভাবে পালনের চেষ্টা করব।

এর আগে জাতীয় স্মৃতিসৌধের পরিদর্শন বইতে স্বাক্ষর করেন সংসদের স্পীকার, ডেপুটি স্পীকার ও চীফ হুইপ।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৭:৩৯:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪
১১৬ বার পড়া হয়েছে

স্মৃতিসৌধে স্পীকার, সংসদ উপনেতা, ডেপুটি স্পীকার ও চীফ হুইপের শ্রদ্ধা

আপডেট সময় ০৭:৩৯:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪

 

জাতীয় সংসদের স্পীকার, সংসদ উপনেতা, ডেপুটি স্পীকার ও চীফ হুইপ সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) বিকেল ৪ টায় সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধের শহীদ বেদীতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন স্পীকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী, ডেপুটি স্পীকার অ্যাড: শামসুল হক টুকু ও চীফ হুইপ নুরে আলম চৌধুরী লিটনসহ হুইপগণ।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা-১৯ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান আসাদ প্রমুখ।

জাতীয় স্মৃতিসৌধের বেদীতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সংসদের স্পীকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী বলেন, আমাদের দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয়েছে। আমি বাংলাদেশের সকল জনগণকে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। গতকাল থেকে আমাদের দ্বাদশ জাতীয় সংসদের অধিবেশন শুরু হয়েছে। আপনারা দেখেছেন প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি এসেছেন। সংবিধান অনুযায়ী তিনি ভাষন দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপরেই সংসদে সংসদ সদস্যদের আলোচনা চলমান থাকবে। এছাড়া আমাদের অন্যান্য যে কাজ কার্যপ্রনালী বিধির সংবিধান অনুযায়ী প্রশ্ন জিজ্ঞাসা, জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে নোটিশ প্রদান থেকে শুরু করে মাননীয় সংসদ সদস্যের অংশগ্রহণমূলক যে কার্যপ্রনালী সেগুলো অধিবেশনে চলমান থাকবে। আপনারা জানেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হানিনা টানা চারবারের প্রধানমন্ত্রীসহ মোট ৫ বারের প্রধানমন্ত্রী এবং তিনি জাতীয় সংসদ নেতা হিসাবে জাতীয় সংসদ পরিচালনার সাথে তাঁর যে রুপকল্প, আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত সমৃদ্ধ স্মার্ট সোনার বাংলা গড়ে তোলা, সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নে জাতীয় সংসদও কাজ করে যাবে।

 

তিনি আরও বলেন, আমাদের সংসদে সরকারি দল আছে, বিরোধী দল আছে, স্বতন্ত্র সদস্য আছেন, এছাড়া আরও দুটো তিনটে পার্টির একজন করে সংসদ সদস্য আছেন। সংসদ সদস্য যারা বিরোধী দলে আছেন এবং স্বতন্ত্র আছেন, তাদেরকে কথা বলার সুযোগ দেব। প্রত্যেক কার্যক্রমে তারা অংশ গ্রহণের সুযোগ পাবেন, প্রশ্ন জিজ্ঞাসা-উত্তরে তারা মাননীয় মন্ত্রীদেরকে প্রশ্ন করতে পারবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বুধবারে যে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা-উত্তর সেখানেও অংশগ্রহণ করতে পারবেন। বিভিন্ন নোটিশ দিতে পারবেন অর্থাৎ একটা সংসদীয় গণতন্ত্রকে সুষ্ঠুভাবে এগিয়ে নেয়ার জন্য বিরোধী দল এবং স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যদের যে ভূমিকা, সেটা যাতে তারা সুষ্ঠু ভাবে পালন করতে পারেন আমি সেই দায়িত্ব স্পীকার হিসেবে যথাযথভাবে পালনের চেষ্টা করব।

এর আগে জাতীয় স্মৃতিসৌধের পরিদর্শন বইতে স্বাক্ষর করেন সংসদের স্পীকার, ডেপুটি স্পীকার ও চীফ হুইপ।