ঢাকা ০১:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১২ দেশের সামরিক কর্মকর্তাদের সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা

আনোয়ার সুলতান, সাভার

রোববার (০৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল সোয়া ৯টায় মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মত্যাগকারী বীর শহীদদের প্রতি সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত ১২টি দেশের সামরিক বাহিনীর উর্ধতন কর্মকর্তারা।

পরে জাতীয় স্মৃতিসৌধের পরিদর্শন বইয়ে স্বাক্ষর করেন অস্ট্রেলিয়ার সামরিক বাহিনীর উর্ধতন কর্মকর্তা লে. কর্নেল জন ডেম্পসি, চীনের সিনিয়র কর্নেল ডু জিংসেন, ভারতের ব্রিগেডিয়ার মানমিত সিং সাবারওয়াল, ইন্দোনেশিয়ার কর্নেল আজওয়ান আব্দি, মায়ানমারের ব্রিগেডিয়ার সো ন্যুয়েত, নেপালের ব্রিগেডিয়ার রোশান শামসের রানা, প্যালেস্টাইনের কর্নেল মাহমুদ সারাওনাহ, রাশিয়ার কর্নেল সারগেই ভিক্টরোভিচ নেয়দেনভ্ ও লেঃ কর্নেল আলেক্সি ইয়্যুরিভিচ তেরেকভ, তুর্কির কর্নেল এরদাল শাহীন, যুক্তরাজ্যের লেঃ কর্নেল জন ক্র্যাফোর্ড ম্যাকলিলান স্কর্ট, যুক্তরাষ্ট্রের লেঃ কর্নেল মাইকেল এরিক দ্যিমেশেই ও মেজর ইয়ান লিওনার্দ।

এরপর বাংলাদেশের পোশাক খাতের সমৃদ্ধি, পরিবেশ গুণগত মানসহ বিভিন্ন বিষয় সমুন্নত রাখতে আশুলিয়ার কাঁইচাবাড়ী এলাকায় অবস্থিত টিম গ্রুপের ফোর এ ইয়ান ডায়িং নামে একটি পোশাক কারখানা পরিদর্শন করেন সামরিক কর্মকর্তারা।

এর আগে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর আগত সামরিক কর্মকর্তাদের পক্ষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন ডিজিএফআইয়ের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল হামিদুল হক।

তিনি বলেন, দেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মত্যাগকারী বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য ঢাকায় নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের সামরিক, মিলিটারি ও ডিফেন্স অ্যাটাচের কর্মকর্তারা জাতীয় স্মৃতিসৌধে এসেছেন। ডিজিএফআইয়ের ব্যবস্থাপনায় ১২টি দেশের ১৪ জন সামরিক কর্মকর্তা বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে সকল দেশের সাথেই বন্ধুত্ব। কারো প্রতিই আমাদের বৈরিতা নয়।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপডেট সময় ০৭:০৩:০৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
১০১ বার পড়া হয়েছে

১২ দেশের সামরিক কর্মকর্তাদের সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা

আপডেট সময় ০৭:০৩:০৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রোববার (০৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল সোয়া ৯টায় মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মত্যাগকারী বীর শহীদদের প্রতি সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত ১২টি দেশের সামরিক বাহিনীর উর্ধতন কর্মকর্তারা।

পরে জাতীয় স্মৃতিসৌধের পরিদর্শন বইয়ে স্বাক্ষর করেন অস্ট্রেলিয়ার সামরিক বাহিনীর উর্ধতন কর্মকর্তা লে. কর্নেল জন ডেম্পসি, চীনের সিনিয়র কর্নেল ডু জিংসেন, ভারতের ব্রিগেডিয়ার মানমিত সিং সাবারওয়াল, ইন্দোনেশিয়ার কর্নেল আজওয়ান আব্দি, মায়ানমারের ব্রিগেডিয়ার সো ন্যুয়েত, নেপালের ব্রিগেডিয়ার রোশান শামসের রানা, প্যালেস্টাইনের কর্নেল মাহমুদ সারাওনাহ, রাশিয়ার কর্নেল সারগেই ভিক্টরোভিচ নেয়দেনভ্ ও লেঃ কর্নেল আলেক্সি ইয়্যুরিভিচ তেরেকভ, তুর্কির কর্নেল এরদাল শাহীন, যুক্তরাজ্যের লেঃ কর্নেল জন ক্র্যাফোর্ড ম্যাকলিলান স্কর্ট, যুক্তরাষ্ট্রের লেঃ কর্নেল মাইকেল এরিক দ্যিমেশেই ও মেজর ইয়ান লিওনার্দ।

এরপর বাংলাদেশের পোশাক খাতের সমৃদ্ধি, পরিবেশ গুণগত মানসহ বিভিন্ন বিষয় সমুন্নত রাখতে আশুলিয়ার কাঁইচাবাড়ী এলাকায় অবস্থিত টিম গ্রুপের ফোর এ ইয়ান ডায়িং নামে একটি পোশাক কারখানা পরিদর্শন করেন সামরিক কর্মকর্তারা।

এর আগে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর আগত সামরিক কর্মকর্তাদের পক্ষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন ডিজিএফআইয়ের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল হামিদুল হক।

তিনি বলেন, দেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মত্যাগকারী বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য ঢাকায় নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের সামরিক, মিলিটারি ও ডিফেন্স অ্যাটাচের কর্মকর্তারা জাতীয় স্মৃতিসৌধে এসেছেন। ডিজিএফআইয়ের ব্যবস্থাপনায় ১২টি দেশের ১৪ জন সামরিক কর্মকর্তা বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে সকল দেশের সাথেই বন্ধুত্ব। কারো প্রতিই আমাদের বৈরিতা নয়।